সাধারণ তুলাযন্ত্র | সাধারণ তুলাযন্ত্রের সুবেদিতা | সুবেদী তুলা যন্ত্রের সুবেদি তুলা যন্ত্রের গুন | ওজন বাক্সের বাটখারা গুলির অনুপাত

পরিমাপ ও পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে গেলে অবশ্যই তুলা যন্ত্রের নাম। সাধারণ তুলাযন্ত্র সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রশ্ন পরীক্ষায় থাকে ।
সাধারণ তুলাযন্ত্র ওজন বাক্স

কোন যন্ত্রের সাহায্যে বস্তুর ভর পরিমাপ করা হয় ?

সাধারণ তুলা যন্ত্র বা কমন ব্যালেন্স এর সাহায্যে বস্তুর ভর মাপা হয়।

সাধারণ তুলা যন্ত্র এর সাহায্যে বস্তুর ভর পরিমাপের পদ্ধতি ব্যাখ্যা করো

সাধারণ তুলা যন্ত্রের সাহায্যে বস্তুর ভর পরিমাপ করার সময় বস্তুকে তুলা যন্ত্রের বামদিকের তুলা পাত্রে রেখে এবং তুলা যন্ত্রের ডানদিকের তুলা পাত্রে প্রমাণ বাটখারা চাপানো হয়। এমন অবস্থায় তুলাদন্ড টি অনুভূমিক হলেই ,

বাটখারার ওজন × তুলা দন্ডের বল-বাহুর দৈর্ঘ = বস্তুর ওজন × তুলাদন্ডে রোধবাহুর

এই ভাবে বস্তুর ভর পরিমাপ করা হয়।

ওজন বাক্সে বাটখারার গুলি ভরের কি অনুপাতে রাখা হয় এবং কেন রাখা হয়?

সাধারণ তুলা যন্ত্রের ওজন বাক্সের বাটখারা গুলির ভর 5:2:2:1 অনুপাতে রাখা হয় যাতে 10 মিলিগ্রাম থেকে  211.10 গ্রাম পর্যন্ত যে কোন মানের ভর এদের সাহায্যে মাপা সম্ভব হয়।

আরো পড়ো| বায়ুশূন্য স্থানে এরোপ্লেন উড়তে পারে না কেন?

সাধারণ সাধারণ তুলা যন্ত্রের সুবেদিতা বলতে কি বোঝায় ? সুবেদী তুলা যন্ত্রের কি কি গুন থাকে ? সাধারণ তুলা যন্ত্রের সুবেদিতা শর্ত গুলি লেখ।

যে তুলা যন্ত্র দিয়ে ভরের সামান্যতম পার্থক্য যত সূক্ষ্মভাবে পরিমাপ করা যায় সেই তুলা যন্ত্রের সুবেদিতা ততবেশি।
সাধারণ তুলা যন্ত্রের সুবেদিতা শর্তগুলি হল

  • বাহু দুটি দীর্ঘ হবে ।
  • সূচকটি লম্বা হবে ।
  • তুলাদন্ড হালকা হবে ।
  • তুলাদন্ডে ভারকেন্দ্র আলম্বের খুব নিকটবর্তী হবে।


ভালো তুলা যন্ত্রের কি কি গুণ থাকা প্রয়োজন ?


  • পুরো যন্ত্রটি সুবেদী হবে অর্থাৎ ভরের সামান্যতম পার্থক্য নির্দেশ করতে পারবে।
  • তুলাযন্ত্রটি দৃঢ় হবে।
  • তুলাযন্ত্রটি নির্ভুল হবে অর্থাৎ উভয় তুলা পাত্রে সমপরিমাণ ভর চাপালে তুলা যন্ত্র টি অনুভূমিক হবে।
  • তুলাযন্ত্রটি সুস্থিত হবে অর্থাৎ তুলাদন্ড টি যখন দুলতে শুরু করে তা যেন ক্ষণস্থায়ী হয়।
  • তুলাযন্ত্রটির বাহুদ্বয়ের দৈর্ঘ্য ও তুলা পাত্র দুটির ভর সমান হবে।

সাধারণ তুলা যন্ত্র ব্যবহারের সময় কি কি সর্তকতা অবলম্বন করা উচিত ?

সাধারণ তুলা যন্ত্র ব্যবহারের সময় নিম্নলিখিত সতরকাতা গুলি ব্যবহার করা উচিত:

  • সমগ্রতলের যন্ত্রটিকে কাঁচের বাক্সের মধ্যে রাখতে হবে যাতে বায়ুর প্রভাবে সূচকটির দোলন প্রভাবিত না হয় বা ধুলোবালি যাতে তুলাযন্ত্রে জমতে না পারে।
  • বাটখারা ও বস্তুকে চিমটার সাহায্যে তোলা উচিত যাতে ময়লা লেগে বা ঘর্ষণে বাটখারার পরিমাণের পরিবর্তন না হয়।
  • খুব ভারী বস্তুর ভর এই যন্ত্রের সাহায্যে পরিমাপ করা উচিত না।
  • তুলা পাত্রে বস্তু বা বাটখারা চাপানোর আগে তুলাপত্র দুটিকে চাবি ঘুরিয়ে কাঠের পাটাতনের উপর রাখা উচিত।
  • তুলাদন্ড কে সাম্যবস্থায় এনে তবে পরীক্ষাধীন বস্তুর ভর পরিমাপ করা উচিত।

অভিকর্ষহিন স্থানে সাধারণ তুলা যন্ত্রের সাহায্যে বস্তুর ভর মাপা যাবে কি ?

না ,কারণ সাধারণ তুলা যন্ত্রের সাহায্যে বস্তুর ওজন ও বাটখারার ওজন এবং দুই বাহুর দৈর্ঘ্যের উপর ভিত্তি করে বস্তুর ভর নির্ণয় করা হয়। কৃত্রিম উপগ্রহ বা অভিকর্ষজ ত্বরণ হিন স্থানে সব বস্তু ভারহীন অবস্থায় থাকে অর্থাৎ ওজন  শূন্য।তাই  বস্তুর  ভর পরিমাপ করা যায় না।এই কারণে সাধারণ তুলা যন্ত্র কৃত্রিম উপগ্রহের ব্যবহার করা যাবে না।

কোন বস্তুকে কলকাতায় ও দার্জিলিঙে যথাক্রমে সাধারণ তুলা যন্ত্র ও স্প্রিং তুলা যন্ত্রের সাহায্যে মাপা হলে কোন যন্ত্রে পাঠের পরিবর্তন হবে এবং কেন ?

স্প্রিং তুলা যন্ত্রের পাঠের পরিবর্তন হবে।
 স্প্রিং তুলা যন্ত্রের বস্তুর ভার বা ওজন মাপা হয় ওই স্থানে অভিকর্ষজ ত্বরণের উপর নির্ভর করে ।কলকাতার তুলনায় দার্জিলিংয়ের অভিকর্ষজ ত্বরণ কম হওয়ায় দার্জিলিংয়ের পাঠ কলকাতার চেয়ে কম হবে।