কোনো অধ্যায়ের মকটেস্ট, প্রশ্ন-উত্তর কিংবা মতামত এর জন্য → Contact us !

সপ্তম শ্রেণীর পরিবেশ ও বিজ্ঞান চতুর্থ অধ্যায় পরিবেশ গঠনের পদার্থের ভূমিকা । class 7 science (Poribesh) chapter 4

সপ্তম শ্রেণীর পরিবেশ ও বিজ্ঞান - এর চতুর্থ অধ্যায় অর্থাৎ পরিবেশ গঠনে পদার্থের ভূমিকা - এর বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন-উত্তর নিয়ে আজকের পর্বে আমরা আলোচনা করব। এই অধ্যায়ের অন্তর্ভুক্ত বিষয় গুলি হল- জীবদেহ গঠনে অজৈব ও জৈব পদার্থের ভূমিকা, আম্লিক ও ক্ষারীয় দ্রব্য সনাক্তকরণ, নির্দেশকের ধারণা, অ্যাসিড - ক্ষার বিক্রিয়া, মানবদেহে অম্ল ও ক্ষারের ভারসাম্য, সংশ্লেষিত যৌগ ও পরিবেশে তার প্রভাব ইত্যাদি।

class 7 science - Poribesh chapter 4 - thumbnail


জীব দেহ গঠনে অজৈব ও জৈব পদার্থের ভূমিকা

1. পৃথিবীতে প্রাকৃতিক মৌলের সংখ্যা কতগুলি?
উত্তর: পৃথিবীতে প্রাকৃতিক মৌলের সংখ্যা 94 টি।

2. জীবদেহে কতগুলি প্রাকৃতিক মৌল থাকে?
উত্তর: জীবদেহে মাত্র 22 টি মৌল উপস্থিত।

3. মানবদেহে সর্বাধিক উপস্থিত মৌল কোনটি?
উত্তর: মানবদেহের সর্বাধিক উপস্থিত মৌল হল অক্সিজেন।

4. মানবদেহে কার্বনের শতকরা ওজনানুপাতিক উপস্থিতি কত?
উত্তর: মানবদেহে কার্বনের শতকরা উপস্থিতি 18.5 শতাংশ।

5. মানবদেহে নাইট্রোজেনের শতকরা উপস্থিতি কত?
উত্তর: মানবদেহে নাইট্রোজেন শতকরা 3.3 শতাংশ উপস্থিত রয়েছে।

6. মানুষের দেহে শতকরা কত ভাগ জল রয়েছে?
উত্তর: মানুষের দেহের শতকরা প্রায় 60% জল রয়েছে।

7. ভূপৃষ্ঠ শতকরা কত শতাংশ অক্সিজেন দ্বারা গঠিত?
উত্তর: ভূপৃষ্ঠ শতকরা 46.6 শতাংশ অক্সিজেন দ্বারা গঠিত।

8. এমন তিনটি অধাতব মৌলের নাম লেখ যাদের পরিমাণ পৃথিবীপৃষ্ঠের চেয়ে মানবদেহে বেশি?
উত্তর: অক্সিজেন, কার্বন ও নাইট্রোজেন এর পরিমাণ পৃথিবীপৃষ্ঠের চেয়ে মানবদেহে বেশি।

9. ওজনানুপাতিক দিক দিয়ে কোন চারটি মৌলের মিলিত ভর মানবদেহের ওজনের প্রায় সমান?
উত্তর: কার্বন, হাইড্রোজেন, অক্সিজেন ও নাইট্রোজেন।

10. পৃথিবীপৃষ্ঠে অ্যালুমিনিয়ামের শতকরা ওজন আনুপাতিক পরিমাণ কত?
উত্তর: পৃথিবীপৃষ্ঠে অ্যালুমিনিয়ামের শতকরা ওজন আনুপাতিক পরিমাণ হল 8.1 শতাংশ।

জীবদেহের নানান যৌগ

11. জীব দেহ গঠনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ যৌগ কোনটি?
উত্তর: জীব দেহ গঠনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ যৌগ হলো জল।

12. একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের দেহে জলের পরিমাণ কত শতাংশ?
একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের দেহের শতকরা প্রায় 60 ভাগ জল।

মানুষের দেহে জলের পরিমাণ - চিত্র

13. মানুষের দেহের মোট জলের কত শতাংশ রক্তের মধ্যে থাকে?
উত্তর: মানুষের দেহের মোট জলের শতকরা 25 শতাংশ প্রায় রক্তের মধ্যে থাকে।

14. একজন পূর্ণবয়স্ক স্ত্রীলোকের দেহে শতকরা কত শতাংশ জল?
উত্তর: একজন পূর্ণবয়স্ক স্ত্রীলোকের দেহের শতকরা 50 শতাংশ জল।

15. সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো: ওজনের শতাংশের বিচারে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ জল থাকে - পুরুষদের দেহে / স্ত্রীলোকেদের / শিশুদের দেহে। 
উত্তর: শিশুদের দেহে

16. জীবদেহে জলের ভূমিকা লেখ।
উত্তর: প্রাণ রক্ষা করার জন্য অক্সিজেনের পরই গুরুত্বপূর্ণ হলো জল। জলে নানা ধরনের জৈব ও অজৈব পদার্থ দ্রবীভূত হয়, অর্থাৎ জল একটা ভালো দ্রাবক। কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন ও লিপিড হজম হওয়ার পর তাদের সারাংশ তরলের মাধ্যমে সারা দেহে ছড়িয়ে পড়ে। আবার দেহে উৎপন্ন দূষিত পদার্থ জলে দ্রবীভূত অবস্থাতেই দেহ থেকে বেরিয়ে যায়। এছাড়াও দেহের নানান রাসায়নিক বিক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে।দ্রাবক ধর্ম ছাড়াও আরো কয়েকটি ধর্ম পৃথিবীতে প্রান সৃষ্টির ও প্রাণ ধারণের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই ধর্মগুলোর মধ্যে জলে কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও অক্সিজেনের দ্রবীভূত হওয়া এবং জলের মধ্য দিয়ে সূর্যের আলো প্রবেশ করতে পারা উল্লেখযোগ্য।

17. শুন্যস্থান পূরণ করো:  জল একটি ___ দ্রাবক ।
উত্তর: পোলার। 

18. শামুক ও ঝিনুকের দেহের শক্ত খোলস কি দিয়ে তৈরি?
শামুক ও ঝিনুকের দেহের শক্ত খোলস ক্যালসিয়াম কার্বনেট দিয়ে তৈরি।

19. জলজ উদ্ভিদ ও প্রাণীর কোন অক্সিজেন গ্রহণ করে বেঁচে থাকে?
জলের মধ্যে ভুলে যাওয়া অক্সিজেন ব্যবহার করে জলজ উদ্ভিদ ও প্রাণীর বেঁচে থাকে।

20. ছোট মাছ খাওয়া ভালো কেন?
ছোট মাছে ক্যালসিয়াম থাকে যা হাড় ও দাঁতকে শক্ত করতে সাহায্য করে।

21. মেটে খেলে শরীর কোন উপাদান পাই?
অথবা মেটে তে কোন উপাদান থাকে যা আমাদের শরীরের জন্য উপকারী?
উত্তর: আয়রন।

22. মানবদেহের জন্য প্রয়োজনীয় ধাতব উপাদান গুলি লেখ।
উত্তর: মানবদেহের জন্য প্রয়োজনীয় ধাতব উপাদান গুলি হল সোডিয়াম পটাশিয়াম ক্যালশিয়াম আয়রন কপার জিংক ম্যাঙ্গানিজ , কোবাল্ট ও ম্যাগনেসিয়াম।

23. মানবদেহের জন্য অতি প্রয়োজনীয় ধাতু 4 টির নাম লেখ।
মানবদেহের অতি প্রয়োজনীয় ধাতু চারটি হলো সোডিয়াম, পটাশিয়া্‌ ক্যালসিয়াম ও আয়রন।

24. ক্যালসিয়াম ট্যাবলেটে কি থাকে?
উত্তর: ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট থাকে ক্যালসিয়াম কার্বনেট আর কিছু জৈব যৌগ।

25. জীব দেহে আয়রনের গুরুত্ব লেখ।
উত্তর: মানুষ সহ বিভিন্ন প্রাণীর রক্ত তৈরি করতে আয়রন খুব প্রয়োজন। রক্তের লোহিত রক্তকণিকার হিমোগ্লোবিন আয়রন ছাড়া গঠিত হতে পারে না।

26. হাড়ের প্রধান উপাদান কি?
উত্তর: হাড়ের প্রধান উপাদান হলো ক্যালসিয়ামের ফসফেট যৌগ।

27. শরীরে ঠিক মাত্রায় সোডিয়াম ও পটাশিয়াম আয়ন না থাকলে কি হবে?
উত্তর: শরীরে ঠিক মাত্রায় সোডিয়াম ও পটাশিয়াম আয়ন না থাকলে স্নায়ুবিক অনুভূতি গ্রহণ , হাঁটাচলা ইত্যাদিতে সমস্যা হবে।

28. জীবদেহে উপস্থিত চারটি জৈব যৌগের নাম লেখ।
উত্তর: জীবদেহে উপস্থিত চারটি জৈব যৌগ হলো- কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, লিপিড ও নিউক্লিক অ্যাসিড।

29. জ্বালানি খাদ্য কাকে বলে?
অথবা, শর্করাকে জালানো খাদ্য বলা হয় কেন?
উত্তর: বীজ থেকে চারা বেরোনোর জন্য প্রয়োজনীয় শক্তি আসে শর্করা থেকে। তাছাড়া ফ্যাটের তাপনমূল্য বেশি হলেও পরিমাণে শর্করা জাতীয় খাবার বেশি গ্রহণ করা হয়। তাই শর্করাকে জ্বালানি খাদ্য বলা হয়।

30. মেরু অঞ্চলের প্রাণীদের চামড়ার নিচে লিপিডের স্তর থাকে কেন?
উত্তর: মেরু অঞ্চলের প্রাণী দের চামড়ার নিচে লিপিডের স্তর থাকলে শীতের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। এই লিপিডের স্তর তাপের কুপরিবাহী। তাই সিল, তিমি, সিন্ধুঘোটক, মেরু ভাল্লুক ও পেঙ্গুইনের চামড়ার নিচে পুরু লিপিডের স্তর তাদের মেরু অঞ্চলের প্রবল ঠান্ডা থেকে বাঁচায়।


সাধারণ অভিজ্ঞতা থেকে আম্লিক ক্ষারীয় দ্রব্য সনাক্তকরণ

31. কোন রাসায়নিক পদার্থের জন্য কিছু ফল টক হয়?
উত্তর: অ্যাসিডের জন্য।

32. নিচের পরিচিত জিনিস গুলিতে কি কি অ্যাসিড আছে তা লেখ।

নামউপস্থিত অ্যাসিড
1. আপেলম্যালিক অ্যাসিড
2. পাতিলেবুসাইট্রিক অ্যাসিড ও অ্যাসকরবিক অ্যাসিড
3. কমলালেবুসাইট্রিক অ্যাসিড ও অ্যাসকরবিক অ্যাসিড
4. তেতুলটারটারিক অ্যাসিড
5. টমেটোম্যালিক অ্যাসিড , অক্সালিক অ্যাসিড ও সাইট্রিক অ্যাসিড
6. দইল্যাকটিক অ্যাসিড
7. ভিনিগারঅ্যাসিটিক অ্যাসিড
8. সোডা ওয়াটারকার্বনিক অ্যাসিড
9. মিউরিয়েটিক অ্যাসিডহাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড


33. পিঁপড়ের হুলে কোন অ্যাসিড থাকে?
উত্তর: ফরমিক অ্যাসিড।

34. অ্যাসিড কাকে বলে?
উত্তর: যে রাসায়নিক পদার্থ নীল লিটমাস কাগজ কে লাল করে দেয় এবং জলে দ্রবীভূত অবস্থায় হাইড্রোজেন (H+) আয়ন দেয় তাকে অ্যাসিড বলে। যেমন সালফিউরিক অ্যাসিড।

35. ক্ষারক কাকে বলে?
উত্তর: যে রাসায়নিক পদার্থের জলীয় দ্রবণ লাল লিটমাসকে নীল করে দেয় এবং জলে দ্রবীভূত অবস্থায় হাইড্রোক্সিল (OH-) আয়ন দেই তাকে ক্ষার বলে।

36. ক্ষার কাকে বলে?
উত্তর: যেসব ঘার জলে দ্রবীভূত হয় তাকে কার বলে। যেমন - কস্টিক সোডা।

37. মানুষের পাকস্থলীতে কোন অ্যাসিড খাবার হজম করতে সাহায্য করে?
উত্তর: মানুষের পাকস্থলীতে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড থাকে।

38. অম্লনাশক কি?
উত্তর: অ্যাসিডিটি বা গ্যাস অম্বল হলে আমরা যে ওষুধ খায় তা আসলে হল এক ধরনের ক্ষারক। জাসিদিঃ সাথে বিক্রিয়া করে অ্যাসিড কে প্রশমিত করে। একেই অ্যান্টাসিড বা অম্লনাশক বলে।

নির্দেশকের ধারণা

39. নির্দেশক কাকে বলে ? উদাহরণ দাও।

উত্তর: যে সব পদার্থ অ্যাসিড ও ক্ষার চিনতে সাহায্য করে তাকে নির্দেশক বলে। যেমন লিটমাস পেপার, মিথাইল অরেঞ্জ ইত্যাদি।

কোন নির্দেশক এর কি রং

40. অ্যাসিড ও ক্ষারকের কোন নির্দেশক কি বর্ণ ধারণ করে তা দেওয়া হল:
উত্তর:

নির্দেশকঅ্যাসিডক্ষারক
1. লিটমাসলালনীল
2. ফেনলফথ্যালিন বর্ণহীনগোলাপি
3. মিথাইল অরেঞ্জলালহলুদ
4. মিথাইল রেডলালহলুদ
5. হলুদহলুদলাল
6. জবা পাপড়ির রসগোলাপিসবুজ

অ্যাসিড-ক্ষার বিক্রিয়া

41. প্রশমন বিক্রিয়া কাকে বলে?
উত্তর: অ্যাসিড ও ক্ষারের বিক্রিয়া যখন অ্যাসিড ও ক্ষার উভয়ের ধর্ম লোপ পাই , সাধারণভাবে তাকে প্রশমন বিক্রিয়া বলা হয়।

42. অ্যাসিড ও ক্ষারের বিক্রিয়া কি উৎপন্ন হয়?
উত্তর: অ্যাসিড ও ক্ষারের বিক্রিয়ায় লবণ ও জল উৎপন্ন হয়।

অ্যাসিড ক্ষারের দ্রবণে তাদের পরিমাণ সম্পর্কে ধারণা

43. উৎস অনুযায়ী অ্যাসিড কয় প্রকার ও কি কি?
উত্তর: উৎস অনুযায়ী অ্যাসিড দুই প্রকার। যথা: জৈব অ্যাসিড ও অজৈব অ্যাসিড।

44. জীব দেহ বা জৈব উৎস থেকে পাওয়া যায় এরকম তিনটি অ্যাসিডের নাম লেখ।
উত্তর: ফরমিক অ্যাসিড, অ্যাসিটিক অ্যাসিড ও ল্যাকটিক অ্যাসিড।

45. তিনটি অজৈব অ্যাসিডের নাম লেখ।
উত্তর:  হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড, নাইট্রিক অ্যাসিড ও সালফিউরিক অ্যাসিড।

46. হাইড্রক্সোনিয়াম আয়ন কাকে বলে?
অথবা, হাইড্রোনিয়াম আয়ন কাকে বলে?
উত্তর: অ্যাসিডের অনু ভেঙ্গে তৈরি হওয়া হাইড্রোজেন আয়ন জলের অনুর সঙ্গে জুড়ে গিয়ে জলীয় দ্রবণে H3O+ রূপে থাকে তাকে হাইড্রক্সোনিয়াম বা হাইড্রোনিয়াম আয়ন বলে।

47. অ্যাসিড ও ক্ষারের পার্থক্য লেখ।

অ্যাসিডক্ষারক
1. সাধারণভাবে অ্যাসিডের স্বাদ টকসাধারণভাবে ক্ষারক স্বাদে কষা
2. অ্যাসিড জলে ভেজানো নীল লিটমাসকে লাল করেক্ষারক জলে ভেজানো লাল লিটমাসকে নীল করে।
3. অ্যাসিড জলীয় দ্রবণে H+ আয়ন উৎপন্ন করে।ক্ষার জলীয় দ্রবণে OH- আয়ন উৎপন্ন করে

48. pH স্কেল কি?
উত্তর: pH স্কেল হলো একটি বিশেষ ধরনের মাপকাঠির যার সাহায্যে  অ্যাসিড ও ক্ষারক এর মাত্রাসহ শনাক্তকরণ করা হয়। এই স্কেল যে কাগজের উপর লাগানো থাকে তা আসলে বিভিন্ন ধরনের নির্দেশক এর মিশ্রন দ্বারা তৈরি।

pH স্কেল Image

49. প্রশম দ্রবণে pH এর মান কত?
উত্তর: প্রশম দ্রবণে pH এর মান 7

মানবদেহে অম্ল - ক্ষারের ভারসাম্য

51. অ্যাসিড বা ক্ষারীয় পদার্থ চোখে নাকে গেলে কি করা উচিত?
উত্তর: অ্যাসিড বা ক্ষারীয় পদার্থ চোখে বানাকে গেলে সেই জায়গা অনেকটা পরিষ্কার জল দিয়ে বারবার ধুয়ে ফেলা দরকার। রগড়ে ধোয়া যাবে না এবং সাবান দেওয়া যাবে না। তারপর পরিষ্কার কাপড় বা তুলো দিয়ে আলগা করে ঢেকে তৎক্ষণাৎ ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে।

52. জলকে প্রশম দ্রাবক বলে কেন?
উত্তর: বিশুদ্ধ জলের মধ্যে H+ ও OH- আয়রনের পরিমাণ এতই কম হয় যে কোন নির্দেশক দিয়ে জলের আম্লিক না ক্ষারীয় ধর্ম ধরা যায় না। তাই দলকে প্রাথমিকভাবে প্রশ্ন প্রকৃতির দ্রাবক বলা হয়।

53. দেহের বিভিন্ন তরলের pH এর মান ও প্রকৃতি

তরলের নামpH এর মানপ্রকৃতি
লালারস6.02 থেকে 7.05আম্লিক
পাকস্থলীর রসে0.9 থেকে 1.05আম্লিক
পিত্তরস1.0 থেকে 8.60ক্ষারীয়
রক্ত7.35 থেকে 7.45ক্ষারীয়
মূত্র4.6 থেকে 8.0আম্লিক, ক্ষারীয় বা প্রশম হতে পারে।

54. মানবদেহে অ্যাসিড ক্ষার ভারসাম্য কিভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়?
উত্তর: নিঃশ্বাস প্রক্রিয়ার মাধ্যমে: ফুসফুসে অতিরিক্ত কার্বন ডাই-অক্সাইড দেহ থেকে বেরিয়ে গেলে দেহ ক্ষারীয় হয় আবার ফুসফুস থেকে কার্বন-ডাই-অক্সাইড কম বেরোলে রক্তে জল ও কার্বন ডাই অক্সাইড যুক্ত হয়ে কার্বনিক অ্যাসিড তৈরি হয় দেহতরল আম্লিক হয়ে পড়ে।
দেহে ঘটে চলা নানান রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে।

55. জীবাণু যখন আমাদের দেহে রোগ সৃষ্টি করে তখন কোন অ্যাসিডের পরিমাণ বেড়ে যায়?
উত্তর: ল্যাকটিক অ্যাসিড।

56. শূন্যস্থান পূরণ করো: দীর্ঘদিন ধূমপান করলে দেহে ___ পরিমাণ বাড়ে।
অ্যাসিডের।

খাদ্য লবণ

57. খাবার নুন এর রাসায়নিক নাম ও সংকেত লেখ।
উত্তর: খাবার নুন এর রাসায়নিক নাম হলো সোডিয়াম ক্লোরাইড এবং সংকেত NaCl

58. লবণ কয় প্রকার ও কি কি?
উত্তর: লবণ 3 প্রকার । যথা:

  1. সৈন্ধব বা সামুদ্রিক লবণ
  2. বিট লবণ বা রক সল্ট
  3. খাবার নুন বা টেবিল সল্ট

59. সামুদ্রিক লবণ এর মধ্যে কত রকমের যৌগ থাকে?
উত্তর: সামুদ্রিক লবণ এর মধ্যে 47 ধরনের যৌগ থাকে।

60. দৈনন্দিন জীবনে যে খাবার নুন আমরা ব্যবহার করি তার উৎস কি?
উত্তর: দৈনন্দিন জীবনে যে খাবার হন আমরা ব্যবহার করি তার উৎস সমুদ্রের লোনা জল।


61. বর্ষাকালে খাবার লবণ খোলা রাখলে তা ভিজে যায় কেন?
উত্তর: নুন এর মধ্যে থাকা তিনটি উপাদান হলো - সোডিয়াম ক্লোরাইড, ম্যাগনেসিয়াম ক্লোরাইড ও ক্যালসিয়াম ক্লোরাইড। বর্ষাকালে ম্যাগনেসিয়াম ক্লোরাইড ও ক্যালসিয়াম ক্লোরাইড বাতাস থেকে জলীয়বাষ্প শোষণ করে। তাই লবণ ভিজে যায়।

61. মানুষের দেহের রক্তে লবণের পরিমাণ কত?
উত্তর: মানুষের দেহের 100 মিলিলিটার রক্তে সোডিয়াম ক্লোরাইড এর পরিমাণ 0.9 গ্রাম।

62. আলুর চিপস বানানোর সময় পাতলা করে আলু কেটে তাকে নুন মাখিয়ে রাখা হয় কেন?
উত্তর: নুন মাখিয়ে রাখলেও আলু থেকে খুব সহজেই জল অভিস্রবণ প্রক্রিয়ায় বাইরে বেরিয়ে আসে।

63. সদ্য কাটা মাছ মাংসের টুকরো নুন মাখিয়ে রাখলে কি হবে?
উত্তর: নুন জলে রাখলে মাছ ও মাংসের টুকরোগুলো থেকে জল বেরিয়ে যেতে থাকে। তাই শুটকি মাছ তৈরীর সময় নুন মাখিয়ে রোদে শুকোতে দেওয়া হয়।

64. উচ্চ রক্তচাপ থাকলে ডাক্তারবাবু কি পরামর্শ দেন?
উত্তর: উচ্চ রক্তচাপ থাকলে ডাক্তারবাবু নুন কম খেতে পরামর্শ দেন।

65. মস্তিষ্ক বা সুষুম্না কান্ডের সংবেদন আদান-প্রদান এর কাজে প্রধান সহায়ক কি?
উত্তর: খাবার নুনে থাকা সোডিয়াম আয়ন। তবে পটাশিয়াম আয়ন ও ক্যালসিয়াম আয়রনও এইকাজে গুরুত্বপূর্ণ।

66. মানুষের শরীরে ক্যালসিয়ামের কাজ কি?
উত্তর: মূলত দুটো কাজে ক্যালসিয়াম সাহায্য করে - (i) হাড় ও দাঁতের গঠনে সাহায্য করে  (ii) হৃদপেশীর কাজ নিয়ন্ত্রণ করে।

67. মানব শরীরের কোন অঙ্গে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ ক্যালসিয়াম থাকে?
উত্তর: মানব শরীরের শতকরা 99 ভাগ ক্যালসিয়াম হাড়ের মধ্যে থাকে।

68. কোন ভিটামিন হাড়ে ক্যালসিয়াম জমা করে?
উত্তর: ভিটামিন D হাড়ে ক্যালসিয়াম জমা করে।

69. আমাদের শরীরে আয়োডিন যুক্ত নুন প্রয়োজন কেন?
উত্তর: আয়োডিনের অভাবে মস্তিষ্কের বিকাশ সঠিকভাবে হয় না।তাছাড়া আরও টিমের অভাবে গলগন্ড রোগ হয়। তাই আমাদের শরীরে আয়োডিন যুক্ত নুন প্রয়োজন।

70. আয়োডিনের অভাবে কোন রোগ হয়?
উত্তর: আয়োডিনের অভাবে গয়টার বা গলগন্ড রোগ হয়।

71. মানবদেহের প্রধান রেচন অঙ্গ কোনটি?
উত্তর: বৃক্ক  বা কিডনি।

72. Salary শব্দটি কোথা থেকে এসেছে?

উত্তর:  Salary শব্দটা এসেছে Salt থেকে।

73. একটি সংশ্লেষিত পদার্থের নাম ও ব্যবহার লেখ।
উত্তর: একটি সংশ্লেষিত পদার্থ হল প্লাস্টিক। প্লাস্টিক দিয়ে চেয়ার টেবিল ইত্যাদি তৈরি হয়।

সংশ্লেষিত বস্তু - পলিমার

74. পলিমার কাকে বলে?
উত্তর: অনেক ছোট ছোট যৌন জুড়ে তৈরি হয় যে বৃহৎ শৃংখল জৈব অণু তাকেই পলিমার বলে। যেমন পলিথিন।

75. পলিথিনের মনোমার এর নাম কি?
উত্তর: পলিথিনের মনোমার এর নাম ইথিলিন।

76. পলিমার শব্দটি কোথা থেকে উৎপন্ন হয়েছে?
উত্তর: পলিমার শব্দটির উৎপত্তি দুটি গ্রিক শব্দ পলি ও মেরোস থেকে উৎপন্ন হয়েছে।

77. পলি কথার অর্থ কি?
উত্তর: পলি কথার অর্থ হল বহু।

78. দুটি প্রাকৃতিক পলিমারের উদাহরণ দাও।
মাংসপেশি, লিগামেন্ট ইত্যাদি।

79. দুটি কৃত্রিম পলিমারের উদাহরণ দাও।
উত্তর: পলিথিন, পিভিসি ইত্যাদি।

80. পিভিসি এর একটি কাজ লেখ।
উত্তর: পিভিসি তড়িতের অন্তরক হিসাবে ব্যবহার করা হয়।

81. প্লাস্টিক কয় প্রকার ও কি কি?
উত্তর: প্লাস্টিক দুই প্রকার যথাঃ - থার্মোপ্লাস্টিক ও থার্মোসেটিং প্লাস্টিক।

82. থার্মোপ্লাস্টিক কাকে বলে?
উত্তর: এক ধরনের প্লাস্টিক নরম হয় তাদের আকৃতি তাপ দিয়ে পাল্টানো , গলানো বা বাঁকানো যায় । তাই এই ধরনের প্লাস্টিক কে থার্মোপ্লাস্টিক বলা হয়।

83. থার্মোসেটিং প্লাস্টিক কাকে বলে?
উত্তর:  যে প্লাস্টিক একবার শক্ত হয়ে গেলে তাপ দিয়ে ও তাদের আকৃতি আর পাল্টানো যায় না, সেই প্লাস্টিক কে থার্মোসেটিং প্লাস্টিক বলে।

সাবান ও ডিটারজেন্ট

84. সাবান কাকে বলে?
উত্তর: সাবান হলো কিছু জৈব অ্যাসিডের সোডিয়াম পটাশিয়াম যৌগ যা তৈরি হয় চর্বি বা উদ্ভিজ্জ তেল এর সঙ্গে কস্টিক ক্ষারের বিক্রিয়ায়।

85. ডিটারজেন্ট কাকে বলে?
উত্তর: পেট্রোলিয়াম বা অন্য উৎসবে প্রাপ্ত হাইড্রোকার্বন জাতীয় যৌগের সঙ্গে ঘন সালফিউরিক অ্যাসিডের বিক্রিয়ায় উৎপন্ন অ্যাসিডের জলে দ্রাব্য যৌগ হল ডিটারজেন্ট।

সার ও কীটনাশক

86. সাইলেন্ট স্প্রিং বইটি কার লেখা?
উত্তর: রাচেল কারসন এর লেখা।

87. দুটি কীটনাশকের নাম লেখ।
উত্তর: মিথাইল প্যারাথিয়ন, অলড্রিন ইত্যাদি।

ওষুধ

88. অম্বল অ্যাসিডিটি হলে ডাক্তার কোন ওষুধ খেতে বলে? কেন?
উত্তর:  অ্যান্টাসিড।
কারণ, অ্যান্টাসিড পাকস্থলীর অতিরিক্ত অ্যাসিড কে প্রশমিত করে।

89. সিমেন্টে কোন কোন ধাতব উপাদান থাকে?
উত্তর: সিমেন্টে ক্যালসিয়াম ,অ্যালুমিনিয়াম, আয়রন অক্সাইড ও সিলিকেট জাতীয় যৌগ মেশানো থাকে।

90. সিমেন্টের ঢালাই এর পরদিন থেকেই তার গায়ে জল দেওয়া হয় কেন?
উত্তর: জলের সংস্পর্শে সিমেন্ট এর মধ্যে থাকা ক্যালসিয়াম অক্সাইড, হাইড্রোক্সাইড এ পরিণত হয় এবং বিভিন্ন সিলিকেট যৌগের সঙ্গে জল যুক্ত হয়। এইসব রাসায়নিক বিক্রিয়া গুলোতে তাপ উৎপন্ন হয় বলে সিমেন্ট ফেটে যায়। তাই ঢালাই এর পরদিন থেকেই তার গায়ে জল দেওয়া হয়।

91. হলুদ কাছে কোন যৌগ মেশানো থাকে?
উত্তর: হলুদ কাঁচে আয়রন অক্সাইড মেশানো থাকে।

92. নীল কাছে কোন যৌগ মেশানো থাকে?
উত্তর: নীল কাঁচে কোবাল্ট অক্সাইড মেশানো থাকে।

93. সবুজ কাছে কোন অক্সাইড মেশানো থাকে।
উত্তর: ক্রোমিয়াম অক্সাইড।

94. জৈব ভঙ্গুর পদার্থ কাকে বলে? উদাহরণ দাও।
উত্তর: যেসব পদার্থ প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া এর নষ্ট হয়ে যায় তাদের জৈব ভঙ্গুর বায়ো-ডিগ্রেডেবল পদার্থ বলে। যেমন কাগজ, পাটের দড়ি ইত্যাদি।

95. জৈব অভঙ্গুর পদার্থ কাকে বলে?
উত্তর: যেসব পদার্থ প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া এর নষ্ট হয় না তাদের জৈব অভঙ্গুর বা নন বায়োডিগ্রেডেবল পদার্থ বলে। জীবন প্লাস্টিক, পলিথিন ইত্যাদি।

96. কোন রাসায়নিক পদার্থের প্রভাব আজকে শকুন প্রায় বিলুপ্ত?
উত্তর: ডাইক্লোফেনাক।

97. শকুন বিলুপ্তপ্রায় কেন?
উত্তর: গবাদিপশুর শরীরে একসময় ডাইক্লোফেনাক নামক বেদনানাশক ব্যবহার করা হতো। ওই গবাদি পশু মারা গেলে তাকে ভাগাড়ে ফেলে আসা হতো। ওই গবাদি পশুর মাংস শকুন খেলে শকুনের শরীরে ওই ডাইক্লোফেনাক বিষক্রিয়া ঘটাতে এবং শকুনের কিডনি নষ্ট হয়ে যেত। এর ফলে শকুন আজ বিলুপ্ত প্রায়।

98. জমিতে কীটনাশক ব্যবহার এর ক্ষতিকারক প্রভাব লেখ।
উত্তর: কীটনাশক ব্যবহার করলে তা খাদ্যের মাধ্যমে মানুষের শরীরে প্রবেশ করলে ভিন্ন অন্তক্ষরা গ্রন্থি এর কার্যকারিতা হ্রাস, স্নায়বিক অনিয়ম ও অন্যান্য নানা ধরনের পরিবর্তন ঘটাতে সক্ষম। তাছাড়া ফসলের পক্ষে ক্ষতিকারক পোকামাকড় মারার জন্য যে সমস্ত কীটনাশক ব্যবহার করা হয় তা বহু পরিবেশবান্ধব প্রাণী যেমন- মৌমাছি, রেশম মথ ইত্যাদি কে মেরে ফেলে ফলে পরিবেশের ভারসাম্য বিঘ্নিত হয়।

Web & App Developer, Blogger , Youtuber , VRP @Social Audit Unit-WB Govt

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Please Comment , Your Comment is Very Important to Us.