উদ্ভিদের সাড়া প্রদান ও রাসায়নিক সমন্বয় | হরমোন | অক্সিন জিব্বেরেলিন সাইটোকাইনিন


হরমোন (Hormone )উদ্ভিদের সাড়া প্রদান ও রাসায়নিক সমন্বয়


হরমোন শব্দের উৎপত্তি
গ্রিক শব্দ হরমাও থেকে হরমোন শব্দের উৎপত্তি । হরমাও শব্দের অর্থ “আমি জাগ্রত করি” । স্টারলিং এর মতে অন্তক্ষরা গ্রন্থি বা অনাল গ্রন্থি থেকেই হরমোন ক্ষরিত হয় যা প্রোটিন, অ্যামাইনো–অ্যাসিড ও স্টেরয়েড ধর্মী । 1905 সালে বেলিস ও স্টারলিং হরমোনের উপস্থিতি প্রমান করেন ও নামকরন করেন ।

হরমোনের বৈশিষ্ট :–
হরমোন হল একপ্রকার জৈব-রাসায়নিক পদার্থ যা প্রোটিন, অ্যামাইনো –অ্যাসিড ও স্টেরয়েডধর্মি ।
হরমোন হল একপ্রকার জৈব-রাসায়নিক পদার্থ যা প্রোটিন, অ্যামাইনো –অ্যাসিড ও স্টেরয়েডধর্মি ।
হরমোন অনুঘটকের মত ক্রিয়া করলেও , শেষপর্যন্ত ক্রিয়ার পর ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় ।
হরমোন খুব সল্পমাত্রায় ক্রিয়া করে , তাঁর স্থায়িত্বকাল দীর্ঘদিন ।
হরমোনকে রাসায়নিক দূত বলে কেন ?
প্রথমত – হরমোন নিজেই জৈব রাসায়নিক পদার্থ ।
দ্বিতীয়ত – হরমোন উৎস থেকে লক্ষ্য কলা-কোষে বাহিত হয়ে তাদের মধ্যে বিশেষ নির্দেশ পৌছে দেয় ও তাদের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে ।
হরমোনকে দ্বৈত নিয়ন্ত্রক বলে কেন ?
উত্তর:- কারন , দেখা যায় যে , কোনো কোনো হরমোন কোনো নির্দিষ্ট কাজে সাহায্য করে আবার অপর কোনো হরমোন ওই একই কাজকে বাধাও দেয় । তাই হরমোনকে দ্বৈত নিয়ন্ত্রক বলে ।
হরমোনের সংজ্ঞা –
উত্তর :– যে জৈব-রাসায়নিক পদার্থ জীবদেহের বিশেষ ধরনের নির্দিষ্ট কতগুলি কোষ বা কোষসমষ্টি বা অন্তক্ষরা গ্রন্থি থেকে উৎপত্তি লাভ করে বিশেষ উপায়ে বাহিত হয়ে দূরবর্তী স্থানে ক্রিয়া করে ও রাসায়নিক দূতের ভুমিকা পালন করে এবং ক্রিয়ার পর ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় , তাকে হরমোন বলে । যেমন – অক্সিন , অ্যাড্রিনালিন ।
হরমোন VS স্নায়ু (পার্থক্য):

হরমোন স্নায়ু
হরমোন রাসায়নিক সমন্বয়কারী । স্নায়ু হল ভৌত সমন্বয়কারী ।
হরমোনের ক্রিয়া মন্থর কিন্তু সুদূরপ্রসারী । স্নায়ুর ক্রিয়া দ্রুত কিন্তু তাৎক্ষনিক ।
হরমোন ক্রিয়ার পর ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়। ক্রিয়ার পর স্নায়ুর তেমন কোন পরিবর্তন হয় না ।

হরমোন VS উৎসেচক (পার্থক্য) :-
হরমোন উৎসেচক
হরমোন কেবল তরুণ কোষ অথবা অনালগ্রন্থি থেকে উৎপন্ন হয় । উৎসেচক সব সজীব কোষে উৎপন্ন হয় ।
অনাল গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত হরমোন সরাসরি রক্ত কিংবা লসিকায় মেশে। সনাল গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত উৎসেচক নালিপথে বাহিত হয়।
ক্রিয়ার পর ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় । ক্রিয়ার পর অপরিবর্তিত থাকে
হরমোন রাসায়নিক দূত বা বার্তাবহ রুপে কাজ করে। উৎসেচক রাসায়নিক বার্তাবহ রুপে কাজ করে না ।
স্থানিয় হরমোন ছাড়া সব হরমোন উৎসস্থল থেকে দূরবর্তী স্থানে ক্রিয়া করে উৎসেচক: উৎসেচক উৎসস্থল এবং যেকোনো স্থানে ক্রিয়া করতে পারে।

হরমোনের সধারন কাজ :-
1. জীবদেহের কোষে কোষে রাসায়নিক সমন্বয় সাধন করে ।
2.জীবদেহের বিভাজন ও বৃদ্ধিতে সাহায্য করে ।
3.জীবদেহের বিপাক ক্রিয়া নিয়ন্ত্রন করে ।
হরমোনের প্রকারভেদ: হরমোন 2 প্রকার যথাঃ
উদ্ভিদ হরমোন
প্রাণী হরমোন
উদ্ভিদ হরমোন
উদ্ভিদ হরমোনের বৈশিষ্ট্য:
উৎস : প্রধানত মূল ও কান্ডের অগ্রভাগের ভাজক কলা থেকে উৎপন্ন হয়।
পরিবহনের ধরন : ব্যাপন প্রক্রিয়ায় কোষ থেকে কোষ আনতরে বাহিত হয়
কাজ : কোষে কোষে রাসায়নিক সমন্বয় সাধন করা হরমোনের উদ্ভিদের বৃদ্ধি ও কোশবিভাজন নিয়ন্ত্রণ করা।
ফুলের পরিস্ফুটন, উৎপত্তি পরিণতি ও যৌন বৈশিষ্ট্য প্রকাশে সহায়তা করা ।

উদ্ভিদ হরমোনের প্রকারভেদ
উদ্ভিদ হরমোন সাধারণত চার ধরনের হয় ।
প্রাকৃতিক উদ্ভিদ হরমোন: যেসব হরমোন উদ্ভিদ দেহে প্রাকৃতিক উপায়ে সৃষ্টি হয়
যেমন যেমন অক্সিন, জিব্বেরেলিন ইত্যাদি।
কৃত্রিম উদ্ভিদ হরমোন: যেসব উদ্ভিদ হরমোন উদ্ভিদ দেহে কৃত্রিম ভাবে সৃষ্টি করা হয়।
স্থানীয় উদ্ভিদ হরমোন: যে সমস্ত উদ্ভিদ হরমোন উৎপত্তিস্থল এই ক্রিয়া করে।
প্রকল্পিত উদ্ভিদ হরমোন: অদূর ভবিষ্যতে যে সমস্ত উদ্ভিদ হরমোনের কল্পনা করা হচ্ছে বা গবেষণা করা হচ্ছে। যেমন ফ্লোরিজেন।
অক্সিন হরমোন
উৎস: কান্ড ও মূলের অগ্রস্থ ভাজক কলা।
রাসায়নিক উপাদান: কার্বন হাইড্রোজেন অক্সিজেন ও নাইট্রোজেন।
সংকেত: C10H9O2N
রাসায়নিক প্রকৃতি: ইনডোল বর্গ যুক্ত
পরিবহন: নিম্নমুখী
ট্রপিক চলন এর ভূমিকা: আছে
মুকুল ও বীজের সুপ্তাবস্থা ভঙ্গ: এরকম কোনো ভূমিকা নেই।
নাইট্রোজেন উপস্থিত
জিব্বেরেলিন হরমোন
উৎস: বীজপত্র পরিপক্ক বীজ ও মুকুল ইত্যাদি
রাসায়নিক উপাদান: কার্বন হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন
সংকেত: C19H22O6
রাসায়নিক প্রকৃতি: টারপিনয়েড বর্গ যুক্ত
পরিবহন: উভমুখি
ট্রপিক চলন এর ভূমিকা: নেই
মুকুল ও বীজের সুপ্তাবস্থা ভঙ্গ: মুকুল ও বীজের সুপ্তাবস্থা ভঙ্গ করে।
নাইট্রোজেন: অনুপস্থিত
জিব্বেরেলিন হরমোন
সাইটোকাইনিন:
উৎস উদ্ভিদের ফলো শস্য
রাসায়নিক উপাদান কার্বন হাইড্রোজেন অক্সিজেন ও নাইট্রোজেন
রাসায়নিক প্রকৃতি পিউরিন জাতীয় ক্ষারীয় জৈব পদার্থ
পরিবহন সবদিকে
ট্রপিক চলন এর কোনো ভূমিকা নেই
মুকুল ও বীজের সুপ্তাবস্থা ভঙ্গ : এরকম কোনো ভূমিকা নেই
অন্তক্ষরা গ্রন্থি বা অনাল গ্রন্থি কি?
উত্তর : যেসব গ্রন্থির ক্ষরিত রস নালির মাধ্যমে ক্ষরিত না হয়ে সরাসরি রক্ত কিংবা লসিকায় মেশে। যেমন- পিটুইটারি ।

তাহলে, বহিক্ষরা গ্রন্থি বা সনাল গ্রন্থি কি?
উত্তর : যেসব গ্রন্থির ক্ষরিত রস নালির মাধ্যমে ক্ষরিত হয়ে অন্যত্র বাহিত হয় । যেমন- লালা গ্রন্থি , বৃক্ক ।
মিশ্র গ্রন্থি সম্পর্কে কিছু জান কি ?
উত্তর : যেসব গ্রন্থি অনাল ও সনল উভয় প্রকার গ্রন্থির সমন্বয়ে গঠিত । যেমন – অগ্নাশয় , শুক্রাশয় ।
মানব দেহের প্রধান অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি গুলির নাম অবস্থান ও নিঃসৃত হরমোনের নাম
পিটুইটারি
  • অবস্থান: মস্তিষ্কের মূল দেশে করোটির স্ফেনয়েড অস্থির সেলা টারসিকা প্রকোষ্ঠে।
  • নিঃসৃত হরমোন :অগ্রভাগ থেকে
  • নিঃসৃত হরমোন: STH, TSH, ACTH, DTH .
  • মধ্যভাগ থেকে: নিঃসৃত হরমোন MSH বা ইন্টারমিডিডিন ।
  • পশ্চাদ্ভাগ থেকে: নিঃসৃত হরমোন ADH এবং অক্সিটোসিন ।
পিনিয়াল বডি
  • অবস্থান: মস্তিষ্কের করপাস ক্যালোসাম এর নিচে
  • নিঃসৃত হরমোন: মেলাটোনিন গ্লোমেরুলোট্রপিন
থাইরয়েড
  • অবস্থান: গ্রীবাদেশে ল্যারিংস এর নিচে ট্রাকিয়ার দু'পাশে
  • নিঃসৃত হরমোন: থাইরক্সিন ট্রাই আয়োডো থাইরনিন ও ক্যালসিটোনিন
প্যারাথাইরয়েড
  • অবস্থান: থাইরয়েডের পৃষ্ঠদেশে অবস্থান ।
  • নিঃসৃত হরমোন: প্যারাথরমোন ।
থাইমাস

  • অবস্থান: থাইরয়েড এর নিচে ট্রাকিয়ার অংক দেশে
  • নিঃসৃত হরমোন: খাইমসিন
আইলেটস অব ল্যাঙ্গারহ্যান্স
  • অবস্থান: অগ্নাশয়
  • নিঃসৃত হরমোন: ইনসুলিন গ্লুকাগন সোমাটোস্ট্যাটিন

অ্যাড্রিনাল
  • অবস্থান: বৃক্কের উপরে
  • নিঃসৃত হরমোন: এড্রিনাল কর্টেক্স থেকে নিঃসৃত হরমোন গ্লুকো-কর্টিকয়েড, মিনারেলো-কর্টিকয়েড, এবং যৌন-কর্টিকয়েড । অ্যাড্রিনাল মেডালা থেকে নিঃসৃত : হরমোন অ্যাড্রিনালিন ও নর-অ্যাড্রিনালিন ।
ডিম্বাশয়
  • অবস্থান: স্ত্রীদেহের শ্রেণী গহবরের জরায়ুর দু'পাশে
  • নিঃসৃত হরমোন: ইস্ট্রোজেন প্রজেস্টেরন রিলাক্সিন

শুক্রাশয়
  • অবস্থান: পুরুষ দেহের দেহগহ্বর এর বাইরে ক্রোটাম নামক থলির মধ্যে
  • নিঃসৃত হরমোন: টেস্টোস্টেরন ও অ্যান্ড্রস্টেরণ

অমরা বা প্লাসেন্টা

  • অবস্থান: গর্ভবতী স্ত্রী দেহের জরায়ুর গাত্রে ,কোরিওনিক গোনাডোট্রফিন ।
  • নিঃসৃত হরমোন: ইস্ট্রোজেন প্রজেস্টেরন ।


পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত বিভিন্ন হরমোন ও তাদের কাজ

অগ্রভাগ থেকে ক্ষরিত হরমোন সমূহ

সোমাটোট্রফিক হরমোন বা গ্রোথ হরমোন বা বৃদ্ধি পোষক হরমোন (STH)

কাজ : প্রশ্ন: মানবদেহের তথা প্রাণী দেহের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটায়। প্রশ্ন: অস্থি ও তরুণাস্থির দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি ঘটায়। প্রশ্ন: শর্করা প্রোটিন ও ফ্যাট বিপাকে সাহায্য করে। প্রশ্ন: এই হরমোন কম খরনে বামনত্ব এবং অধিক ক্ষরণে অতিকায়ত্ব বা জাইগ্যানটিজম বা এক্রোমেগালি রোগ হয় হয়।

থাইরয়েড স্টিমুলেটিং হরমোন (TSH)

কাজ : প্রশ্ন: থাইরয়েড গ্রন্থির স্বাভাবিক বৃদ্ধিতে সাহায্য করা। প্রশ্ন: থাইরয়েড গ্রন্থিকে উদ্দীপিত করে তার ক্ষরণ নিয়ন্ত্রণ করা প্রশ্ন: দেহের আয়োডিন বিপাক নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করা । প্রশ্ন: এই হরমোনের কম ক্ষরণে থাইরয়েড গ্রন্থির ক্ষরণ হ্রাস পায় এবং ক্ষরণ বেড়ে গেলে থাইরয়েড গ্রন্থির আকার বেড়ে যায়।

অ্যাড্রিনো কর্টিকো ট্রপিক হরমোন (ACTH)

কাজ : প্রশ্ন: এড্রিনাল গ্রন্থির কর্টেক্স অঞ্চলের স্বাভাবিক বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ করেপ্রশ্ন: এড্রিনাল গ্রন্থির কর্টেক্স অঞ্চলকে উদ্দীপিত করে তার ক্ষরণ নিয়ন্ত্রণ করে। প্রশ্ন: এই হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে গেলে এড্রিনাল কর্টেক্স এর ক্ষরণ বেড়ে গিয়ে কুশিং বর্ণিত রোগ হয়।

গোনাডোট্রপিক হরমোন (GTH)

কাজ : প্রশ্ন: গোনাড বা জনন গ্রন্থি (শুক্রাশয় ও ডিম্বাশয়) এর বৃদ্ধি ও কার্যকারিতা নিয়ন্ত্রণ করে।

ফলিকল স্টিমুলেটিং হরমোন (FSH)

কাজ : প্রশ্ন: স্ত্রীদেহের ডিম্বাশয়ের গ্রাফিয়ান ফলিকল বা ডিম্বথলির বৃদ্ধিতে এবং তা থেকে ইস্ট্রোজেন হরমোন ক্ষরিত হতে সাহায্য করে।

ইন্টারস্টিশিয়াল সেল স্টিমুলেটিং হরমোন (ICSH)

কাজ : প্রশ্ন: সপুরুষ দেহে শুক্রাশয় এর ইন্টারস্টিশিয়াল কোষ সমূহ কে উদ্দীপিত করে টেস্টোস্টেরন নামক হরমোন ক্ষরণে সাহায্য করে।

লিউটিনাইজিং হরমোন (LH)

কাজ : প্রশ্ন: স্ত্রীদেহের ডিম্বাশয়ের কর্পাস লিউটিয়াম বা পিত গ্রন্থি গঠনে এবং তা থেকে প্রোজেস্টেরন হরমোন ক্ষরণে সাহায্য করে।

প্রোল্যাকটিন বা লিউটোট্রফিক হরমোন (LTH)

কাজ : প্রশ্ন: মাতৃ দেহে স্তন দুগ্ধ ক্ষরণে সাহায্য করে।


পিটুইটারির মধ্যভাগ থেকে ক্ষরিত হরমোন সমূহ

মেলানোসাইট স্টিমুলেটিং হরমোন (MSH)

কাজ : প্রশ্ন: এই হরমোন স্তন্যপায়ী প্রাণী ছাড়া অন্যান্য মেরুদন্ডী প্রাণীদের মেলানিন উৎপাদনে সাহায্য করে ত্বকের বর্ণ গঠন করে।

পিটুইটারির পশ্চাদ্ভাগ থেকে ক্ষরিত হরমোন সমূহ

অ্যান্টিডাই ইউরেটিক হরমোন বা ভেসোপ্রেসিন (ADH)

কাজ : প্রশ্ন: বৃক্কীয় নালিকা পুনশোষণে সাহায্য করে। প্রশ্ন: এর কম খরনে শর্করা বিহীন বহুমূত্র বা ডায়াবেটিস ইনসিপিডাস রোগ হয়। প্রশ্ন: রক্ত বাহির প্রাচীর সংকুচিত করে রক্তচাপ বাড়ায়।

অক্সিটোসিন

কাজ : প্রশ্ন: বগর্ভাবস্থায় জরায়ুর সংকোচন ঘটে রুল ও প্লাসেন্টা নির্গমনের সাহায্য করে। প্রশ্ন: দুগ্ধ ক্ষরণে সাহায্য করে।


হরমোন অধ্যায় এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন উত্তর

প্রশ্ন: প্রথম হরমোনের উপস্থিতির কথা উল্লেখ করেন কোন বিজ্ঞানী ?
উত্তর: বেলিস এবং স্টারলিং।

প্রশ্ন: হরমোন সাধারণত কি কি নিয়ে গঠিত ?
উত্তর: প্রোটিন , অ্যামাইনো অ্যাসিড, স্টেরয়েড ইত্যাদির সমন্বয়ে গঠিত ।

প্রশ্ন: যে সব গ্রন্থি অনাল ও সনাল গ্রন্থির সমন্বয়ে গঠিত তাদের কি বলে ?
উত্তর: মিশ্র গ্রন্থি ।

প্রশ্ন: যে গ্রন্থির ক্ষরণ সরাসরি রক্তে মেশে সেই গ্রন্থির নাম কি ?
উত্তর: এন্ডোক্রিন গ্রন্থি ।

প্রশ্ন: যে গ্রন্থির ক্ষরণ নালীর মাধ্যমে গ্রন্থির বাইরে ক্ষরিত হয় সেই গ্রন্থির নাম কি ?
উত্তর: এক্সোক্রিন গ্রন্থি ।

প্রশ্ন: যে গ্রন্থি অন্তঃক্ষরা ও বহিঃক্ষরা গ্রন্থির সমন্বয়ে গঠিত সেই গ্রন্থির নাম কি ?
উত্তর: মিশ্র গ্রন্থি ।

প্রশ্ন: যে অঙ্গে হরমোন কাজ করে তার নাম কি ?
উত্তর: টার্গেট বা লক্ষ্য অঙ্গ ।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: রাসায়নিক বার্তাবহ কাকে বলা হয় ?
উত্তর: হরমোন কে।

প্রশ্ন: প্রাণী দেহে দৌত নিয়ন্ত্রক হিসাবে কাজ করে কে ?
উত্তর: হরমোন।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: প্রোটিন ধর্মী হরমোন কি কি ?
উত্তর: গ্রোথ হরমোন (S.T.H.),প্যারাথমোন ।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: অ্যামাইনোধর্মী হরমোন কি কি ?
উত্তর: অ্যাড্রিনালিন এবং থাইরক্সিন ।

প্রশ্ন: পেপটাইড ধর্মী হরমোন কি কি ?
উত্তর: ইন্সুলিন এবং ডেসোপ্রেসিন।

প্রশ্ন: উদ্ভিদ দেহের কোন কোন জায়গা থেকে উৎপত্তি লাভ করে ?
উত্তর: ভাজক কলায় বিশেষ করে কাণ্ড ও মূলের অগ্র ভাগে অবস্থিত তরুন কোষের মধ্যে উৎপত্তি লাভ করে ।

প্রশ্ন: উদ্ভিদ দেহের হরমোনের প্রধান উৎপত্তি স্থল কোথায় ?
উত্তর: ভাজক কলা।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: প্রাণী দেহের হরমোনের প্রধান উৎপত্তি স্থল কোথায় ?
উত্তর: অনাল গ্রন্থি ।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: হরমোন প্রাণী দেহে কি হিসাবে কাজ করে ?
উত্তর: রাসায়নিক সমন্বয়কারী বা কেমিক্যাল ম্যাসেঞ্জার হিসাবে ।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: স্নায়ুতন্ত্র প্রাণীদেহে কি হিসাবে কাজ করে ?
উত্তর: ভৌত সমন্বয় কারী হিসাবে ।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: পলিপেপটাইড ধর্মী হরমোন কি কি ?
উত্তর: ACTH , থাইমোসিন ।

প্রশ্ন: প্রশ্ন: স্টেরয়েডধর্মী হরমোন কি কি ?
উত্তর: অ্যালডোস্টেরন , টেস্টোস্টেরন , ইস্ট্রোজেন ।

প্রশ্ন: N2 ঘটিত জৈব অম্ল হরমোন কি কি ?
উত্তর: অক্সিন ।

প্রশ্ন: N2 বিহীন জৈব অম্ল হরমোন কি কি ?
উত্তর: জিব্বেরেলিন।

প্রশ্ন: N2 ঘটিত জৈব ক্ষার কি কি ?
উত্তর: কাইনিন।

প্রশ্ন: গ্যাসীয় হরমোনের নাম কি ?
উত্তর: ইথিলিন ।

প্রশ্ন: উদ্ভিদ দেহের প্রধান বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রক হরমোনের নাম কি ?
উত্তর: অক্সিন ।

প্রশ্ন: অক্সিন আর কি নামে পরিচিত ?
উত্তর: হেটেরো অক্সিন ।

প্রশ্ন: প্রাকৃতিক হরমোন গুলো কি কি ?
উত্তর: অক্সিন , জিব্বেরেলিন , কাইনিন , অ্যাবসাইসিক অ্যাসিড ।

প্রশ্ন: কৃত্রিম হরমোন গুলো কি কি ?
উত্তর: ইন্ডল প্রোপায়নিক অ্যাসিড (IPA), ন্যাপথালিন অ্যসেটিক অ্যসিড ,(NAA),ভাইক্লোরোফেনক্সি অ্যাসেটিক অ্যাসিড (DAA বা 2,4-D),ইন্ডোল বিউটাইরিক অ্যাসিড (IBA)ইত্যাদি।

প্রশ্ন: প্রকল্পিত হরমোনগুলি কি কি ?
উত্তর: ফ্লোরিজেন , ডরমিন , ভারনালিন , রাইজোক্যালিন , ফাইলোক্যালিন ।

প্রশ্ন: অক্সিনের রাসায়নিক নাম কি ?
উত্তর: ইভোল অ্যাসেটিক অ্যাসিড ।

প্রশ্ন: অক্সিন কোন ধরনের অ্যামাইনো অ্যাসিড থেকে সংশ্লেষিত হয় ?
উত্তর: ট্রিপটোফ্যান ।

প্রশ্ন: অক্সিনের পরিবহন কোন প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন হয় ?
উত্তর: ব্যাপন।

প্রশ্ন: অক্সিনের আবিস্কার করেন কোন বিজ্ঞানী ?
উত্তর: বিজ্ঞানী ভেন্ট ।

প্রশ্ন: কোন গাছ থেকে প্রথম অক্সিন আবিস্কৃত হয় ?
উত্তর: জই গাছের ভ্রান মুকুলাবরণীতে ।

প্রশ্ন: অক্সিন সাধারণত কি কি সহযোগে গঠিত ?
উত্তর: কার্বন , হাইড্রোজেন , অক্সিজেন এবং নাইট্রোজেন ।

প্রশ্ন: অক্সিনের রাসায়নিক সংকেত কি ?
উত্তর: C10 H9 O2N ।

প্রশ্ন: উদ্ভিদের অক্সিনের প্রবাহ সবসময় কোন দিকে হয় ?
উত্তর: মেরুবর্তী ।

প্রশ্ন: কোথায় অক্সিনের ক্রিয়া সবথেকে ভালো হয় ?
উত্তর: অন্ধকারে ।

প্রশ্ন: কৃত্রিম অক্সিন গুলো কি কি ?
উত্তর: IPA ,IBA , 2,4D , NAA

প্রশ্ন: অক্সিন প্রধানত কয় প্রকার ?
উত্তর: তিন প্রকার । যথা-অক্সানোট্রায়ালিক অ্যাসিড বা অক্সিন a ,অক্সোনোলিক অ্যাসিড বা অক্সিন b,হেটেরো অক্সিন বা ইন্ডোল অ্যাসেটিক অ্যাসিড ।

প্রশ্ন: অক্সিন সাধারনত উদ্ভিদ দেহের কোন কোন জায়গা থেকে উৎপত্তি লাভ করে ?
উত্তর: বিশেষ করে কাণ্ডের অগ্রভাগ , ভ্রূণ মুকুলাবরনী বা কোলিওপটাইল , ভ্রূণ ও কচিপাতা বা বর্ধনশীল পাতার কোষে উৎপন্ন হয় ।

প্রশ্ন: নারকেলের দুধে কোন হরমোন থাকে?
সাইটোকাইনিন

প্রশ্ন: কোন হরমোন পত্রমোচন বিলম্বিত করে?
সাইটোকাইনিন পত্রমোচন বিলম্বিত করে।

প্রশ্ন: আগাছা নাশক হিসাবে ব্যবহৃত একটি কৃত্রিম হরমোনের উদাহরণ দাও।
2,4-D

প্রশ্ন: পার্থেনোকার্পি ও পার্থেনোজেনেসিস এর পার্থক্য কি?
বীজবিহীন ফল উৎপাদন করার বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিকে বলা হয় পার্থেনোকার্পি। পার্থেনোকার্পি তে কৃত্রিম অক্সিন প্রয়োগ করা হয়।

প্রশ্ন: নিষেক ছাড়াই অপত্য জীবের সৃষ্টি হওয়ার পদ্ধতিকে বলা হয় ?
পার্থেনোজেনেসিস। মৌমাছির ক্ষেত্রে পার্থোনোজেনেসিস দেখা যায়।

প্রশ্ন: কাকে প্রভু গ্রন্থির প্রভু বলা হয়?
হাইপোথ্যালামাস কি প্রভু গ্রন্থির প্রভু বলা হয়।

প্রশ্ন: কোন হরমোন BMR নিয়ন্ত্রণ করে?
থাইরক্সিন হরমোন BMR নিয়ন্ত্রণ করে।

প্রশ্ন: একটি কিটোজেনিক হরমোন এর উদাহরণ দাও
থাইরক্সিন হরমোন।

প্রশ্ন: একটি অ্যান্টি কিটোজেনিক হরমোন এর উদাহরণ দাও।
ইনসুলিন

প্রশ্ন: কোন হরমোনের কম খরনে ডায়াবেটিস মেলিটাস বা মধুমেহ রোগ হয়?
ইনসুলিন

প্রশ্ন: রক্তে গ্লুকোজের স্বাভাবিক পরিমাণ কত ?
80 থেকে 120 মিলিগ্রাম প্রতি 100 এমএল রক্তে

প্রশ্ন: কোন হরমোন যকৃতে শর্করা ও প্রোটিন থেকে গ্লুকোজ সংশ্লেষ করে?
গ্লুকাগন

প্রশ্ন: কোন হরমোন BMR বৃদ্ধি করে?
অ্যাড্রিনালিন

জিব্বেরেলিন হরমোন কিভাবে প্রথম আবিষ্কৃত হয়েছিল?
অথবা 
প্রথম কোথায় GA দেখা যায় ?
জাপানী উদ্ভিদবিদ কুরোসাওয়া ধানের চারার বেকান রোগের তদন্ত করতে গিয়ে গিব্বেরেলিন আবিষ্কার করেছিলেন।সেখানে তিনি গাছের সংক্রামিত ছত্রাক , জিব্বেরেলা ফুজিকুরোই (Gibberella fujikuroi) এর দেহে সর্বপ্রথম GA লক্ষ করেন।