দ্বিপদ নামকরণ কাকে বলে | দ্বিপদ নামকরনের পদ্ধতি | বিভিন্ন উদ্ভিদ ও প্রাণীর বৈজ্ঞানিক নাম PDF |

দ্বিপদ নামকরণ বা  দ্বিপদ নামকরণ কি :

প্রত্যেকটি মানুষের নিজস্ব নাম ছাড়াও ডাকনাম থাকে । সেই নামে অন্য মানুষ তাকে না চিনতেও পারে। ঠিক তেমনই কোন উদ্ভিদ বা প্রাণী বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন নামে পরিচিত। যেমন আমরা যাকে বলি 'ধান' , ওড়িশায় তাকে বলা হয় 'ধানা'  ,  বিহারে 'চাউল' , মাদ্রাজে 'নিলু'  মহেশপুরে 'ভাট্টা' আর ইংরেজিতে প্যাডি
বিভিন্ন উদ্ভিদ ও প্রাণীর যদি একটি নাম থাকত তাহলে বিভিন্ন বৈজ্ঞানিকদের মতবাদ আদান-প্রদানে অনেক সুবিধা হত।
দ্বিপদ নামকরণ

জীব সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানতে এবং জীবের শনাক্তকরণের জন্য প্রতিটি প্রজাতির জীবের একটি করে বৈজ্ঞানিক নামের প্রয়োজন হয়। জীবেদের বৈজ্ঞানিক নাম করনের পদ্ধতি ও নিয়ম  সম্বন্ধে ক্যারোলাস লিনিয়াস প্রথম উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ক্যারোলাস লিনিয়াস ই-প্রথম দ্বিপদ নামকরণ পদ্ধতির প্রচলন করেন। যেমন 'Mangifera indica'  হলো আমের বৈজ্ঞানিক নাম। এক্ষেত্রে ম্যাঙ্গিফেরা (Mangifera) হলো আমের গন বা জেনাস। আর ইন্ডিকা (indica) হলো আমের প্রজাতি ।

দ্বিপদ নামকরণ কাকে বলে ? অথবা, দ্বিপদ নামকরণ বলতে কি বুঝায় ? 

আন্তর্জাতিক নিয়মাবলী অনুযায়ী প্রথমে গণ পরে প্রজাতির পদ যুক্ত করে জীবের নামকরণের পদ্ধতিকেই দ্বিপদ নামকরণ বা binominal nomenclature or binary nomenclature বলে।

দ্বিপদ নামকরণের নিয়মাবলী গুলি কি কি ?
অথবা, দ্বিপদ নামকরণ পদ্ধতি কি ?

আন্তর্জাতিক সংস্থা ICBN (ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অফ বোটানিক্যাল নোমেনকেচার) ও ICZN (ইন্টারন্যাশনাল কমিশন অন জুলজিকাল নোমেনকেচার) যথাক্রমে উদ্ভিদ ও প্রাণী দের নামকরণের নিয়ম তৈরি করে।

দ্বিপদ নামকরনের নিয়ম গুলি হল :

  • উদ্ভিদের নামকরণ প্রাণীর  নামকরণ থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হবে। যেমন  'Mangifera indica' নামটি ছাড়া আর কোন উদ্ভিদ বা প্রাণী কে দেওয়া যাবে না।
  • প্রতিটি প্রজাতির একটি মাত্র বিজ্ঞানসম্মত দ্বিপদ নামকরণ থাকবে।
  • বৈজ্ঞানিক নাম সর্বদা ল্যাটিন ভাষায় হবে।
  • গণের নামকরণে একটিমাত্র পদ ব্যবহৃত হবে। এবং এর পরের অক্ষর টি বড় হরফে লিখতে হবে। যেমন  'Mangifera indica' এর ক্ষেত্রে 'i' ছোট হাতের হরফে লেখা হয়।
  • বিজ্ঞানসম্মত নাম বাঁকা হরফে (italics) লিখতে হবে। নতুবা গণপ্রজাতি কে পৃথক পৃথকভাবে নিম্নরেখ (underline) করতে হবে।
  • যে বিজ্ঞানী নামকরণ করেছেন দ্বিপদ নামের শেষে তার পুরো নাম সংক্ষিপ্ত নাম বা নামের আদ্যক্ষর লেখা উচিত।
  • যেমন আমের ক্ষেত্রে তা হবে Mangifera indica Linn.
  • লিনিয়াসের 'স্পিসিজ প্লান্টারুম' এর প্রকাশকাল অর্থাৎ 1757 সালের আগে কোন উদ্ভিদের নাম গ্রহণযোগ্য হবে না। তেমনি লিনিয়াস এর লেখা 'সিস্টেমা ন্যাচুরি' অর্থাৎ 1758 এর দশম সংস্করন এর প্রকাশকাল এর আগে কোন প্রাণীর বৈজ্ঞানিক নাম গ্রহণযোগ্য হবে না।

দ্বিপদ নামকরণের গুরুত্ব কি ?

  • দ্বিপদ নামকরণের যেসব নিয়মকানুন বলা হল তা থেকে পৃথিবীর যেকোনো দেশের বিজ্ঞানীরা কোন একটি জীবকে একটি নির্দিষ্ট নামে চিনে নিতে পারবেন।
  • জীবের নামকরণের কোন পরিবর্তন হলে তা তারা জানতে পারবেন।
  • সেইসঙ্গে বৈজ্ঞানিক নাম জীবের বৈশিষ্ট্য ও একই গণভুক্ত জীবের মধ্যে আন্তঃসম্পর্ক প্রভৃতি নির্দেশ করতে পারবেন।

দ্বিপদ নামকরণ সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন উত্তর

দ্বিপদ নামকরণ কে প্রচলন করেন ?
দ্বিপদ নামকরনের প্রচলন করেন ক্যারোলাস লিনিয়াস।

দ্বিপদ নামকরণের জনক কে ?
দ্বিপদ নামকরণের জনক হলেন ক্যারোলাস লিনিয়াস।

দ্বিপদ নামকরণের আবিষ্কারক কে করেন ?
দ্বিপদ নামকরনের আবিষ্কার করেন ক্যারোলাস লিনিয়াস।

দ্বিপদ নামকরণের প্রবক্তা কে ?
দ্বিপদ নামকরনের প্রবক্তা হলেন ক্যারোলাস লিনিয়াস।

মানুষের দ্বিপদ (Binomial naming) নামকরণ কি ?
মানুষের দ্বিপদ নামকরণ হলো হোমো স্যাপিয়েন্স।

দ্বিপদ নামকরণের নিয়মাবলী কোন সংস্থা তৈরি করেন?
আন্তর্জাতিক সংস্থা ICBN (ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অফ বোটানিক্যাল নোমেনকেচার) ও ICZN (ইন্টারন্যাশনাল কমিশন অন জুলজিকাল নোমেনকেচার) দ্বিপদ নামকরণের নিয়মাবলী তৈরি করে।

আমের দ্বিপদ নামকরণ (Binomial name) কি ?
আমের দ্বিপদ নামকরণ হলো 'Mangifera indica'।

আমের দ্বিপদ নামকরণ কার দেওয়া ?
আমের দ্বিপদ নাম ক্যারোলাস লিনিয়াস এর দেওয়া।

দ্বিপদ নামকরনের কোন দুটি পদ ব্যবহার করা হয় ?
দ্বিপদ নামকরণ ই কোন উদ্ভিদ বা প্রাণীর গণ ও প্রজাতি এই দুটি পদ ব্যবহার করা হয়।

ICBN এর পুরো কথা কি ?
ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অফ বোটানিক্যাল নোমেনকেচার।

ICZN এর পুরো কথা কি ?
 ইন্টার্নেশনাল কমিশন অন জুলজিকাল নোমেনকেচার

বিভিন্ন উদ্ভিদ প্রাণীদের দ্বিপদ নাম বা বিজ্ঞানসম্মত নাম pdf

  • মানুষের বিজ্ঞানসম্মত নাম  Homo sapiens
  • গরুর বিজ্ঞানসম্মত নাম  Boss indica
  • ছাগলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Capra hircus
  • ইঁদুরের বিজ্ঞানসম্মত নাম Bandicota benglalensis
  • বিড়ালের বিজ্ঞানসম্মত নাম  Felis catus
  • খরগোশ এর বিজ্ঞানসম্মত নাম Oryctolagus cuniculus
  • সিংহের বিজ্ঞানসম্মত নাম Panthera leo
  • বাঘের বিজ্ঞানসম্মত নাম Panthera tigris
  • মশার বিজ্ঞানসম্মত নাম Culex pipiens
  • মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Musca domestica
  • আরশোলার বিজ্ঞানসম্মত নাম Periplaneta americana
  • টিকটিকির বিজ্ঞানসম্মত নাম Hemidactylus brookii
  • মৌমাছির বিজ্ঞানসম্মত নাম Apis indica
  • প্রজাপতির বিজ্ঞানসম্মত নাম Pieris brassicae
  • কুনো ব্যাঙের বিজ্ঞানসম্মত নাম Bufo/Duttaphrynus melanostictus
  • গোখরো সাপের বিজ্ঞানসম্মত নাম Naja naja
  • কচ্ছপের বিজ্ঞানসম্মত নাম Lessemys punctata
  • কুমিরের বিজ্ঞানসম্মত নাম Crocodylus niloticus
  • কলেরা জীবানুর বিজ্ঞানসম্মত নাম Vibrio cholera
  • ম্যালেরিয়ার জীবাণুর বিজ্ঞানসম্মত নাম Plasomodium vivax
  • ইলিশ মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Tenualosa illisha
  • রুই মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Labeo rohita
  • কাতলা  মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Catla catla
  • কই মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Anabas testudineus
  • টাকি মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Channa punctatus
  • মহাশোল  মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম  Tor tor
  • বোয়াল মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Wallago attu
  • বাগদা চিংড়ির বিজ্ঞানসম্মত নাম penaeus monodon
  • গলদা চিংড়ির বিজ্ঞানসম্মত নাম Macrobrachium rosenbergii
  • চিংড়ির বিজ্ঞানসম্মত নাম Macrobrachium malcolmsonii
  • দোয়েল পাখির বিজ্ঞানসম্মত নাম Copsychus saularis
  • কবুতর বা পায়রার বিজ্ঞানসম্মত নাম Columba livia
  • ৩৩। চড়ুই পাখির বিজ্ঞানসম্মত নাম Passer dometicus
  • ময়ূরের বিজ্ঞানসম্মত নাম Pavo cristatus
  • শামুকের বিজ্ঞানসম্মত নাম Pila globosa
  • কেঁচোর বিজ্ঞানসম্মত নাম Metaphira posthuma
  • ঝিনুকের বিজ্ঞানসম্মত নাম Lamellidens marginalis
  • ফিতাকৃমির বিজ্ঞানসম্মত নাম Taenia solium
  •  Ascaris lumbricoides
  • চোখ কৃমির বিজ্ঞানসম্মত নাম Loa loa
  • কাকড়ার বিজ্ঞানসম্মত নাম Carcinus manius
  • ধানের বিজ্ঞানসম্মত নাম Oryza sativa
  • গমের বিজ্ঞানসম্মত নাম Triticum aestivum
  • ভুট্টার বিজ্ঞানসম্মত নাম Zea mays
  • গোল আলুর বিজ্ঞানসম্মত নাম Solanum tuberosum
  • পিয়াজের বিজ্ঞানসম্মত নাম Allium cepa
  • আদার বিজ্ঞানসম্মত নাম Zingiber officinale
  • রসুন এর বিজ্ঞানসম্মত নাম Allium sativum
  • হলুদের বিজ্ঞানসম্মত নাম Curcuma domestica
  • মসুরের বিজ্ঞানসম্মত নাম Lens culinaris
  • সরিষার বিজ্ঞানসম্মত নাম Brassica napus
  • ছোলার বিজ্ঞানসম্মত নাম Cicer arietinum
  • মটর গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Pisum sativum
  •  Lablab purpurius
  • খেসারী গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Lathyrus sativus
  • সোয়াবিনের বিজ্ঞানসম্মত নাম Glycine max
  • তিল এর বিজ্ঞানসম্মত নাম Sesamum indicum
  • মুলার বিজ্ঞানসম্মত নাম Raphanus sativus
  • পুইশাকের বিজ্ঞানসম্মত নাম Basella alba
  • শসার বিজ্ঞানসম্মত নাম Cucumis sativus
  • লাভ এর বিজ্ঞানসম্মত নাম Lagenaria vulgaris
  • বেগুনের বিজ্ঞানসম্মত নাম Solanum melongena
  • বাঁধাকপির বিজ্ঞানসম্মত নাম Brassica oleracea
  • টমেটোর বিজ্ঞানসম্মত নাম Lycopersicon esculentum
  • তেজ পাতার বিজ্ঞানসম্মত নাম Cinnamomum tamala
  • আমের বিজ্ঞানসম্মত নাম Mangifera indica
  • জামের বিজ্ঞানসম্মত নাম Syzygium cumini
  • কাঁঠালের বিজ্ঞানসম্মত নাম Artocarpus heterophyllus
  • কলার বিজ্ঞানসম্মত নাম Musa sapientum
  • লিচুর বিজ্ঞানসম্মত নাম Litchi chinensis
  • নারকেলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Cocos nucifera
  • আনারসের বিজ্ঞানসম্মত নাম Ananas comosus
  • পেয়ারার বিজ্ঞানসম্মত নাম Psidium guajava
  • বেলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Aegle marmelos
  • কুলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Zizyphus mauritiana
  • পেঁপের বিজ্ঞানসম্মত নাম Carica papaya
  • কফির বিজ্ঞানসম্মত নাম Coffea arabica
  • চা এর বিজ্ঞানসম্মত নাম Camellia sinensis
  • তামাকের বিজ্ঞানসম্মত নাম Nicotiana tabacum
  • পাটের বিজ্ঞানসম্মত নাম Corchorus capsularis
  • সেগুন এর বিজ্ঞানসম্মত নাম Tectona grandis
  • শাল গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Shorea robusta
  • সুন্দরী গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Heritiera fomes
  • মেহগনি গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Swietenia mahagoni
  • শিশু গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Dulbergia sissoo
  • বাসকের বিজ্ঞানসম্মত নাম Adhatoda vasica
  • থানকুনি গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Centella asiatica
  • তুলসী গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Ocimum sanctum
  • চাপালিশ গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Artocarpus chaplasha
  • কালমেঘ গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Andrographis paniculata
  • নিম গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম Melia azadirachta
  • গাঁদা ফুলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Tagetes erecta
  • জবা ফুলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Hibiscus rosa-sinensis
  • পদ্ম ফুলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Nelumbo nucifera
  • শাপলা ফুলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Nymphaea nouchali
  • রঙ্গন ফুলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Ixora coccinea
  • রজনীগন্ধার বিজ্ঞানসম্মত নাম Polianthes­ tuberosa
  • গন্ধরাজ এর বিজ্ঞানসম্মত নাম Gardenia jasminodes
  • সূর্যমুখীর বিজ্ঞানসম্মত নাম Helianthus annuus
  • কৃষ্ণচূড়ার বিজ্ঞানসম্মত নাম Delonix regia
আরো পড়ুন: Class 9 |হায়ারার্কি | লিনিয়ান হায়ারার্কি। ট্যাক্সোনমি কি বা কাকে বলে ? ট্যাক্সোনমির জনক কে | ক্যারোলাস লিনিয়াস | নবম শ্রেণীর প্রশ্ন উত্তর

Tags: বৈজ্ঞানিক নাম উচ্চারণ , বৈজ্ঞানিক নামের বাংলা উচ্চারণ, সব বৈজ্ঞানিক নাম, গরুর বিজ্ঞানসম্মত নাম শ্রেণিবিন্যাস এর মাধ্যমে দ্বিপদ নামকরণ কী ,উদ্ভিদের বৈজ্ঞানিক নামের তালিকা, বৈজ্ঞানিক নামের উচ্চারণ, প্রাণীর বৈজ্ঞানিক নামের তালিকা , উচ্চারণসহ বৈজ্ঞানিক নাম , সব বৈজ্ঞানিক নাম, বৈজ্ঞানিক নাম উচ্চারণ, বৈজ্ঞানিক নামের তালিকা, বৈজ্ঞানিক নামের বাংলা উচ্চারণ, উদ্ভিদের বৈজ্ঞানিক নামের তালিকা,binominal nomenclature or binary nomenclature