Header Ads Widget

স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প কি ? স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পতে আপনার নাম আছে কিনা কিভাবে দেখবেন ? আপনার কার্ড এ কত টাকা খরচ হয়েছে ? কোন চিকিৎসায় স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর কত টাকা খরচ হবে ?

swasthya Sathi prakalpa
স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প প্রকল্প কি ?
স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প 17 ই ফেব্রুয়ারি 2016 সালে মন্ত্রিপরিষদ নম্বর 2625 এ ঘোষণা করা হয়েছিল। অর্থ দপ্তরের বিজ্ঞপ্তি নম্বর 1104 এফ (পি) তে 25 শে ফেব্রুয়ারি 2016 সালে ঘোষণা করা হয়েছিল।


 প্রধান সচিবের সভাপতিত্বে একটি রাজ্য পর্যায়ের বাস্তবায়ন কমিটি (এসএলআইসি) গঠিত হয়।
 এই প্রকল্পটি তদারকি এবং পর্যবেক্ষণের জন্য "স্বাস্থ্য সাথী সমিতি" নামে একটি নিবন্ধিত সমিতি রয়েছে । রেজিস্ট্রেশন নম্বর  S/M/4377  : 2016 সালের 15 ই নভেম্বর ।

 এই স্কিমটি আনুষ্ঠানিকভাবে 30 ডিসেম্বর 2016 সালে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দ্বারা চালু করা হয়েছিল।

স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি:

 সেকেন্ডারি এবং টারশিয়ারি কেয়ার এর জন্য পরিবার প্রতি বছরে পাঁচ লাখ টাকা  পর্যন্ত প্রাথমিক স্বাস্থ্য কভার।

 বীমা মোডের মাধ্যমে দেড় লক্ষ টাকা এবং আশ্বাস মোডের মাধ্যমে দেড় লাখ থেকে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত প্রদান ।

স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প টি 2017 সালের 1 ফেব্রুয়ারি রোল আউট হওয়া শুরু হয়। 2018 সালের 28 ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত NIC নটি জেলায় এবং UIIC ১১ টি জেলায় ইন্সুরেন্স পার্টনার হিসেবে কাজ করে। 2018 সালের মার্চ মাসে প্রকল্পটির বাস্তবায়ন আশ্বাস মোদের অধীনে করা হয়। 2018 সালের 1 এপ্রিল থেকে বাজাজ আলিয়ান্স (BAJAJ Allianz) কে 18 টি জেলায় এবং ইফকো টোকিও (IFFCO TOKIO) কে পাঁচটি জেলার দায়িত্ব দেওয়া হয়।

স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের একটি অন্যতম সুবিধা হল পেপারলেস, ক্যাশলেস, স্মার্ট কার্ড ভিত্তিক পেমেন্ট।
 পরিবারের আকারের সর্বোচ্চ সীমা নেই এবং উভয় স্বামী / স্ত্রীর পিতামাতাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।  পরিবারের সমস্ত নির্ভরশীল শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরাও প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন।
প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পূর্বে থেকেই যদি আপনার কোন রোগ থেকে থাকে সেটিই স্কিমের অন্তর্ভুক্ত বিনামূল্য চিকিৎসা আপনি করাতে পারেন।
 পুরো প্রিমিয়ামটি রাজ্য সরকার বহন করে এবং সুবিধাভোগীর কোনও অর্থ প্রদান করতে হয় না।
 তালিকাভুক্তির দিন প্রতিটি পরিবারকে অনলাইন  স্বাস্থ্যসাথী স্মার্ট কার্ড সরবরাহ করা হয়।  স্মার্ট কার্ড প্রদানের জন্য পরিবারের সদস্যদের বিশদ বিবরণ, ফটোগ্রাফ, বায়োমেট্রিক, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, এসইসিসি আইডি ক্যাপচার করা হয়।
 এই প্রকল্পের পরিচালনা প্রথম দিন থেকেই কাগজবিহীন আইটি প্ল্যাটফর্মে অর্থাৎ অনলাইন সার্ভার এর মাধ্যমে করা হয়।
 উপলভ্য পরিষেবা এবং অবকাঠামোর উপর ভিত্তি করে হাসপাতালের অনলাইন এমপ্যানেলমেন্ট এবং গ্রেডেশন এর ব্যবস্থাও করা হয়।
কার্ডের ব্যবহার সপ্তাহে সাতদিন 24 ঘন্টায় অনলাইনের মাধ্যমে করা সম্ভব।কার্ড ব্যবহারের জন্য পূর্ব থেকেই অনুমোদন দেওয়া থাকে কোন সরকারি আধিকারিকের কোন স্বাক্ষর কিংবা অথেন্টিকেশন লাগেনা।
উপভোক্তা কে সতর্ক করার জন্য ও কার্ড ব্লক করার জন্য এসএমএস এর জন্য বিশেষ নম্বরের সুবিধা রয়েছে।
 হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার সময় রোগীর ই-স্বাস্থ্য রেকর্ডের রিয়েল টাইম তথ্য আপলোডের বিশেষ সুবিধা রয়েছে।
 ৩০ দিনের ট্যাট সহ হাসপাতালে দাবিকৃত পাওনা মিটিয়ে  দেওয়া হয় অন্যথায় বিলম্বিত অর্থ প্রদানের জন্য সুদ দেওয়া হয়।
প্রতিক্রিয়া জানানোর জন্য 24X7 টোল ফ্রি কল সেন্টার 18003455384 রয়েছে । এটি হলো স্বাস্থ্যসাথী টোল ফ্রি নম্বর
 অনলাইন অভিযোগ পর্যবেক্ষণ ও নিরসন মেকানিজম রয়েছে ।
 বর্ধন ম্যাট্রিক্স পদ্ধতি দিয়ে সম্ভাব্য জালিয়াতি সনাক্ত করতে অনলাইন ট্রিগার এবং সতর্ক ব্যবস্থা রয়েছে।
 উপকারভোগীদের সহায়তার জন্য অ্যান্ড্রয়েড ভিত্তিক স্বাস্থ্য সাথী মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন প্লে স্টোরে রয়েছে।

স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের লক্ষ্য:
 রাজ্যের প্রতিটি বাসিন্দার সার্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষার লক্ষ্যে রাজ্যের সমাজের বৃহত্তর অংশের জন্য ধীরে ধীরে স্বাস্থ্যসেবা কভারেজ সরবরাহ করা।
স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের উদ্দেশ্য:
 যদিও জনসংখ্যার একটা বড় অংশ সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করছে যা সম্পূর্ণরূপে বিনামূল্যে , তা সত্বেও একটা বড় সংখ্যায় মানুষ প্রাইভেট হাসপাতাল গুলিতে তাদের চিকিৎসা করায়।যার ফলে তাদের পকেট থেকে বড় অংকের অর্থ খরচ হয়। রাজ্য সরকার তার সাধ্যমত প্রত্যেকটি পদক্ষেপ নিচ্ছে যাতে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরো উন্নত করা যায়।
 আধা শহরে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল স্থাপনের মাধ্যমে, রাজ্য সরকার স্বাস্থ্য অবস্থার উন্নতির জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নিচ্ছে এবং এর মাধ্যমে ন্যায্যমূল্যের ওষুধের দোকান, ন্যায্য মূল্যের ডায়াগনস্টিক সেন্টার, 50 কিলোমিটার এর মধ্যে ক্রিটিকাল কেয়ার ইউনিট সুবিধাগুলি চালু করে দারিদ্র্য  জনগণের দুর্বলতা হ্রাস করতে পারে।  এবং গ্রামীণ অঞ্চল এবং আরও অনেক কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে ।  আর একটি লক্ষণীয় উদ্যোগ হ'ল যুক্তিসঙ্গত ব্যয়ে মানসম্পন্ন সেবা নিশ্চিত করার জন্য ক্লিনিকাল স্থাপনা নিয়ন্ত্রণ কমিশন গঠন করা।

 হাসপাতালে ভর্তির কারণে ভয়াবহ ব্যয় থেকে বাসিন্দাদের সুরক্ষার জন্য স্বাস্থ্য কভারেজ প্রদানের জন্য রাজ্য সরকারের তত্পর বিবেচনার ফলে গ্রুপ স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্রকল্প "স্বাস্থ্য সাথী" চালু করা হয়েছে।
 স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের লক্ষ্যবস্তু স্বল্প আয়ের শ্রমিক এবং রাজ্য সরকারের বিভিন্ন বিভাগ দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্প / কর্মসূচীর সাথে যুক্ত স্বেচ্ছাসেবক ।

আপনার নাম স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পে আছে কিনা তা জানার জন্য নিচের বাটনে ক্লিক করতে পারেন।ক্লিক করলে আপনার সামনে যে পেজটি ওপেন হবে তাকে স্ক্রল করে উপরের দিকে যান।মোবাইল নাম্বার বসিয়ে ভেরিফিকেশন করেন তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার নাম এই প্রকল্পের মধ্যে আছে কিনা।

এখানে ক্লিক করুন

আশা করি পোস্টটি পড়ে আপনার ভালো লেগেছে। ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন।



পশ্চিমবঙ্গের ভোটার লিস্ট ডাউনলোড


স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নম্বর (URN No) 17 digit :


Family Member No (সদস্য নম্বর) 1/2/3/4 :



স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর উপরে যে 17 অংকের সংখ্যাটি থাকে সেটাই হলো ইউ আর এন নম্বর (URN No) । পরিবারের প্রধান কার্ড হোল্ডার হলো প্রথম সদস্য 1 নম্বর । তারপর পর পর 2,3,4.... এইভাবে লিস্টেড থাকেন।
প্রথম বক্সটিতে আপনাকে 17 অংকের সংখ্যাটি লিখতে হবে। তার নিচের বক্সটিতে আপনাকে 1 অথবা 2 অথবা 3 অথবা 4 ... এইভাবে লিখতে হবে।