Header Ads Widget

CLASS 10 || ভৌত বিজ্ঞান || বায়ুমণ্ডলের স্তর || ওজোন স্তর || গ্রীনহাউজ এফেক্ট|| বিশ্ব উষ্ণায়ন

পরিবেশের জন্য ভাবনা অধ্যায়টি মাধ্যমিকের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই অধ্যায় থেকে কমপক্ষে পাঁচটি প্রশ্ন মাধ্যমিক পরীক্ষায় আসে।  নম্বর বিভাজন নিচে দেওয়া হল-

অধ্যায় MCQ (১ নম্বর) গ্রূপ-A  VSA  (২ নম্বর) গ্রূপ-B  SA (২ নম্বর) গ্রূপ-C  মোট 
পরিবেশের জন্য ভাবনা ১টি*১=১  ১টি*২=২ ১টি*২=২ ৫ নম্বর 



প্রশ্ন: বায়ুমণ্ডলের উপাদান গুলি কি কি?
উত্তর:বায়ুমণ্ডলের উপাদান গুলি হল বিভিন্ন গ্যাস যেমন নাইট্রোজেন অক্সিজেন কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও অন্যান্য গ্যাস জলীয়বাষ্প ধূলিকণা বায়ুমণ্ডলের উপাদান।
প্রশ্ন: ট্রপোস্ফিয়ারের সীমানা লেখ।
সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে 16 থেকে 18 কিলোমিটার পর্যন্ত ।
প্রশ্ন: ট্রপোস্ফিয়ার কে ক্ষুব্ধ মন্ডল বলে কেন?
ট্রপোস্ফিয়ারের মেঘ ঝড়-বৃষ্টি প্রভৃতি ঘটে বলে স্তরকে ক্ষুব্ধ মন্ডল বা পরিবর্তনশীল স্তর বলে।
প্রশ্ন: উচ্চতা বৃদ্ধিতে ট্রপোস্ফিয়ার এ উষ্ণতার কি পরিবর্তন ঘটে?
6.5 ডিগ্রি সেলসিয়াস / কিমি হারে উষ্ণতা কমতে থাকে।
প্রশ্ন: ট্রপোপজ কি?
ট্রপোস্ফিয়ার ও স্ট্রাটোস্ফিয়ার এর মাঝের অঞ্চল এখানে উষ্ণতা স্থির থাকে।
প্রশ্ন: স্ট্রাটোস্ফিয়ার কে শান্ত মন্ডল বলে কেন?
স্ট্রাটোস্ফিয়ার এ মেঘ ঝড়-বৃষ্টি কিছুই হয়না তাই স্ট্রাটোস্ফিয়ার কে  শান্ত মন্ডল বলে।
প্রশ্ন: জেট প্লেন গুলি কোন স্তরে চলাচল করে?
জেট প্লেন প্লেন গুলি স্ট্রাটোস্ফিয়ার এর চলাচল করে?
প্রশ্ন: ওজোন স্তরের উষ্ণতা কত?
ওজোন স্তরের উষ্ণতা প্রায় 76 ডিগ্রী সেলসিয়াস।
প্রশ্ন: ওজোন স্তরকে প্রাকৃতিক সৌর পর্দা বলে কেন?
উত্তর: সূর্য থেকে আসা ক্ষতিকারক অতিবেগুনী রশ্মিকে ওজোন স্তর শোষণ করে নেয় তাই ওজোন স্তরকে প্রাকৃতিক সৌর পর্দা বলে।
প্রশ্ন: ওজোন স্তরের অবস্থান লেখ।
স্ট্রাটোস্ফিয়ার বা শান্তমন্ডল এর উপর থেকে প্রায় ২০ - ৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত ওজন স্তর বিস্তৃত।
প্রশ্ন: বায়ুমণ্ডলের শীতলতম স্তর কি এর উষ্ণতা কত?
বায়ুমণ্ডলের শীতলতম স্তর হল মেসোস্ফিয়ার এর মেসোপজ।
 এর উষ্ণতা -93 ডিগ্রী সেলসিয়াস।
প্রশ্ন: থার্মোস্ফিয়ার এর অবস্থান লেখ
উত্তর: মেসোস্ফিয়ার এর ওপর থেকে অর্থাৎ 80 কিমি থেকে প্রায় 500 কিমি পর্যন্ত বিস্তৃত।
প্রশ্ন: বায়ুমন্ডলের কোন স্তরে মেরুজ্যোতি দেখা যায় ?
উত্তর: বায়ুমণ্ডলের থার্মোস্ফিয়ার মেরুজ্যোতি বা অরোরা দেখা যায়।
প্রশ্ন: বায়ুমন্ডলের কোন স্তরে বেতার তরঙ্গ প্রতিফলিত হয়।
উত্তর: বায়ুমণ্ডলের আয়নোস্ফিয়ার ও থার্মোস্ফিয়ার থেকে বেতার তরঙ্গ প্রতিফলিত হয়।
প্রশ্ন: ট্রপোস্ফিয়ারের প্রতি কিমি উচ্চতা বৃদ্ধিতে উষ্ণতা কত ডিগ্রী কমে ?
উত্তর: 6.5 ডিগ্রি সেলসিয়াস হারে কমে।
প্রশ্ন: ওজোন স্তর সৃষ্টিতে অতিবেগুনি রশ্মির ভূমিকা লেখ।
উত্তর: ওজোন স্তরের অক্সিজেন গ্যাসের উপর অতিবেগুনি রশ্মি পরলে তা বিয়োজিত হয়ে অক্সিজেন পরমাণু তৈরি করে।ওই অক্সিজেন পরমাণু অনুঘটক এর উপস্থিতিতে অক্সিজেন অনুর সঙ্গে যুক্ত হয়ে ওজন অনু উৎপন্ন করে।
প্রশ্ন: ওজোন স্তরের ধ্বংসের জন্য দায়ী প্রধান যৌগ কোনটি
উত্তর: ক্লোরো ফ্লোরো কার্বন CFC
প্রশ্ন: হ্যালোন কি ?
উত্তর: হ্যালন হলো ব্রোমিন ঘটিত যৌগ যা ওজন স্তর ধ্বংস করে।
প্রশ্ন: ওজোন স্তরের ঘনত্ব কোন এককে প্রকাশ করা হয়?
উত্তর: ওজোন স্তরের ঘনত্ব ডবসন এককে প্রকাশ করা হয়।
প্রশ্ন: ওজোন স্তরের ধ্বংসে নাইট্রোজেনের অক্সাইড এর ভূমিকা সমীকরণ সহ লেখ।
উত্তর: ওজোন স্তরের ওজোন গ্যাসের অনু নাইট্রোজেনের অক্সাইড এর সঙ্গে বিক্রিয়া করে অক্সিজেন অনু তে পরিণত হয়।

NO + O3 → NO2 + O2
NO2 + O→NO+ O

প্রশ্ন: ওজোন স্তরের ধ্বংসে প্রধান দায়ী গ্যাস এর ভূমিকা লেখ
উত্তর: স্ট্রাটোস্ফিয়ার এ ওজন স্তরের ধ্বংসে CFC অনুঘটকের কাজ করে। অতিবেগুনি রশ্মির প্রভাবে CFC বিভাজিত হয়ে ক্লোরিন পরমাণু সৃষ্টি হয়। ক্লোরিন পরমাণু ওজন এর সাথে বিক্রিয়ায়  ক্লোরিন মনোক্সাইড ও অক্সিজেন অনু উৎপন্ন করে। উৎপন্ন ক্লোরিন মনোক্সাইড পুনরায় ওজনের সাথে বিক্রিয়া করে সক্রিয় ক্লোরিন পরমাণু ও অক্সিজেন উৎপন্ন করে।
Cl + O3 → ClO + O2
ClO + O3 → ClOO + O2

প্রশ্ন:গ্রীন হাউস এফেক্ট ও বিশ্ব উষ্ণায়ন এর মধ্যে সম্পর্ক কি?
উত্তর: কার্বন ডাই-অক্সাইড জলীয়বাষ্প মিথেন ক্লোরোফ্লুরো কার্বন নাইট্রাস অক্সাইড ও নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড প্রভৃতি গ্রীন হাউজ গ্যাস গুলি সূর্যের অবলোহিত রশ্মি শোষণ করে  যা হলো গৃণহাউস এফেক্ট। আর এর ফলে পৃথিবীর গড় উষ্ণতা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। একে বলে বিশ্ব উষ্ণায়ন বা গ্লোবাল ওয়ার্মিং। সুতরাং গ্রীনহাউজ ইফেক্ট হলো কারণ এবং বিশ্ব উষ্ণায়ন হলো তার ফলাফল।
প্রশ্ন: প্রধান গ্রীন হাউস গ্যাস কি কি?
প্রধান গ্রীন হাউস গ্যাসটি হল কার্বন-ডাই-অক্সাইড।
উত্তর: নাইট্রোজেন কি একটি গ্রীনহাউস গ্যাস?
নাইট্রোজেন গ্রীন হাউজ গ্যাস নয়।
প্রশ্ন: বিশ্ব উষ্ণায়ন কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে?
উত্তর: প্রথমত, জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার কমাতে হবে যাতে কার্বন ডাই অক্সাইড উৎপাদন কমে যায়।
দ্বিতীয়তঃ ,বনভূমি ধ্বংস না করে আরো নতুন বনভূমির সৃষ্টির জন্য পরিকল্পনা নিতে হবে।
তৃতীয়তঃ ,ক্লোরোফ্লোরো কার্বন জাতীয় পদার্থের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে ।সম্ভব হলে বন্ধ করতে হবে।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই অধ্যায়ের আরো অন্যান্য প্রশ্ন এই পেজে যুক্ত করা হতে থাকবে। তাই পেজটি বুকমার্ক করে রাখুন।

আরো পড়ুন: CLASS 10 || মাধ্যমিক সাজেশন || ভৌত বিজ্ঞান || গ্যাসের আচরণ|| বয়েল | চার্লস | কেলভিন || পরম শূন্য উষ্ণতা