Header Ads Widget

দেওয়ানী অধিকার দ্বৈত শাসন ব্যবস্থা ও ছিয়াত্তরের মন্বন্তর এর সম্পর্ক | দেওয়ানী অধিকার দ্বৈত শাসন ব্যবস্থা ও ছিয়াত্তরের মন্বন্তর কিভাবে একে অপরের সাথে সম্পর্কযুক্ত ছিল

দেওয়ানী অধিকার  দ্বৈত শাসন ব্যবস্থা ও ছিয়াত্তরের মন্বন্তর কী পরস্পর সম্পর্ক যুক্ত ছিল ?

1757 সালে ইস্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানি পলাশীর যুদ্ধে জয়লাভের পর বাংলায় চরম শোষণ শুরু হয়।১৭৬৫ সালে লর্ড ক্লাইভ বাংলার নবাব থেকে দেওয়ানি সনদ প্রাপ্ত হলে যে শাসন প্রণালীর উদ্ভব হয়, তা ইতিহাসে দ্বৈত শাসন নামে পরিচিত। মীর জাফরের মৃত্যুর পর লর্ড ক্লাইভ ১৭৬৫ সালে মোগল সম্রাট দ্বিতীয় শাহ আলমের কাছ থেকে বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যার দেওয়ানি লাভ করে। নবাবের হাতে ছিল ক্ষমতাহীন শাসনব্যবস্থা। এই সময় নবাব ইংরেজদের বৃত্তিভোগী কর্মচারী তে পরিণত হন।


দেওয়ানী অধিকার, দ্বৈত শাসন ব্যবস্থা ও ছিয়াত্তরের মন্বন্তর কী পরস্পর সম্পর্ক যুক্ত ছিল ?

 এই সময় ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ভারতীয়দের উপর এত শোষণ চালাই যে,  ঐতিহাসিক পার্সিভাল স্ফিয়ার  এই যুগকে "প্রকাশ্য ও নির্লজ্জ লুন্ঠনের যুগ" নামে আখ্যয়িত করেন।

বাংলা বিহার উড়িষ্যার দেওয়ানি লাভের পর ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির আর্থিক শোষন চরমে পৌঁছায় আগে অর্থাৎ 1764 থেকে 1765 খ্রিস্টাব্দে কোম্পানির রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ যেখানে ছিল 1 কোটি 2 লক্ষ টাকা আর তার পরের বছর অর্থাৎ 1765 থেকে 1766 তে কোম্পানির দ্বিগুণ পরিমাণ রাজস্ব আদায় করে যা ছিল এক কোটি 10 লক্ষ টাকা।


দেওয়ানি লাভের আগে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির বাণিজ্যের জন্য মূলধন হিসাবে ইংল্যান্ড থেকে  কিন্তু দেওয়ানি লাভের পর ইংল্যান্ড থেকে ভারতে ব্যবসায় মূলধনের অর্থ পাঠানো বন্ধ করা হয় ।বাংলায় রাজস্ব থেকে প্রাপ্ত অর্থেই পণ্য কেনার ব্যবস্থা করা হয় ।সেই ব্যবসার লাভের অর্থ ভারতের বদলে ইংল্যান্ডে জমা পড়তে থাকে।


দেওয়ানী অধিকার দ্বৈত শাসন ব্যবস্থা ও ছিয়াত্তরের মন্বন্তর কিভাবে একে অপরের সাথে সম্পর্কযুক্ত ছিল?


রাজস্ব আদায়ের জন্য জমিদার সাধারণ মানুষের উপরে এত পরিমাণ অত্যাচার ও চাপ প্রয়োগ করে তাতে মানুষের জীবন আরও দুর্বিষহ হয়ে ওঠে।কোম্পানি নিযুক্ত রাজস্ব বিভাগের দুই সহকারী রেজা খাঁ ও সিতাব রায়ের শোষণ ও অত্যাচারে প্রজাদের দুর্দশার অন্ত ছিল না । তাদের এই ব্যবহারের জন্য তারা "রক্তলোলুপ নেকড়ে" নামে আখ্যায়িত হন। ফলস্বরূপ এই সময় 1770 খ্রিস্টাব্দে বাংলায় ছিয়াত্তরের মন্বন্তর দেখা যায়।এর ফলে বাংলায় প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মানুষের মৃত্যু হয় ।অনাবৃষ্টির জন্য শস্যহানিতে এই দুর্ভিক্ষের সূচনা হলেও কোম্পানির দুর্নীতির শাসন নীতি এই দুর্ভিক্ষকে সর্বগ্রাসী ,ব্যাপক, বিভীষিকাময় ও লোকক্ষয়কারী তুলেছিল।

তাই সংক্ষেপে বলা যায়: যদি বাংলায় দ্বৈত শাসন ব্যবস্থা না আসতো তাহলে দেওয়ানী অধিকার ব্যবস্থা আসতো না এবং দেওয়ানী ব্যবস্থা এর ফল পক্ষান্তরে যে ছিয়াত্তরের মন্বন্তর এ বিষয়ে সন্দেহ নেই। তাই বলা যায় দ্বৈত শাসন দেওয়ানী অধিকার ও ছিয়াত্তরের মন্বন্তর পরস্পরের পরিপূরক।

আলোচিত প্রশ্ন: দেওয়ানী অধিকার ও দ্বৈত শাসন ব্যবস্থা ও ছিয়াত্তরের মন্বন্তর এর মধ্যে সম্পর্ক।

MODEL ACTIVITY TASK

We Delivers & planning to Deliver here

Model Activity task Answer | Class 5 Model Task Answer | Class 6 Model Task Answer | Class 7 Model Task Answer | Class 8 Model Activity | Class 9 Model Activity Answer |Class 10 Model Activity Answer | Madhyamik Model Activity task | Study material | secondary education |wbbse social science contemporary India | 9th social science | free pdf download Bengal board of secondary | state government board of secondary education | chapter 6 population download NCRT | NCRT solutions for class 9 social science | NCRT book west Bengal board higher secondary | NCRT textbooks | west Bengal state class 9 geography | secondary examination physical features CBSE class | Model activity model WBBSE