সানি লিওনি এর জীবনী || Porn Artist Sunny Leone's biography in Bengali


করণজিৎ কৌর ভোহরা 1981 সালের 13 মে কানাডার অন্টারিও শহরে জন্মগ্রহণ করেন যাকে চিত্রজগৎ সানি লিওনের নামে জানে।সাধারণত তিনি একজন পর্নস্টার কিন্তু বর্তমানে ভারতীয় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে তিনি অভিনেত্রী ও মডেল হিসেবে কাজ করছেন। তিনি একইসাথে আমেরিকা ও কানাডার নাগরিক। অভিনয়ের জগতে তিনি স্টেজ নাম হিসাবে কারেন মালহোত্রা নামটি ব্যবহার করেন।
জন্ম করণজিৎ কৌর ভোহরা
1981, 13 মে
কানাডা এর অন্টারিও শহর
বয়স 38
অন্য নাম কারেন মালহোত্রা
নাগরিকত্ব ভারতীয়, কানাডা ও আমেরিকা
পেশা অভিনেত্রী পর্নোগ্রাফিক অভিনেতা
কার্যকাল 2001 সাল থেকে বর্তমান
পরিচিতিবিগ বস 5,রাগিনি mms2 ,এক পেহেলি লীলা, স্প্লিটসভিলা
পরিচিতি বিগ বস 5,রাগিনি mms2 ,এক পেহেলি লীলা, স্প্লিটসভিলা
শিশু তিনজন

তিনি 2003 সালে "পেন্টহাউস পেট অফ দ্যা ইয়ার" পুরস্কারে ভূষিত হন।2010 সালে সবথেকে জনপ্রিয় 12 জন পর্ন স্টার এর মধ্যে তাকে "ম্যাক্সিম" নামে আখ্যায়িত করা হয়।
সানি লিওনের জীবনী
তিনি প্রথম সারির মেইনস্ট্রিম মিডিয়াতে সিনেমা অতীতেও অভিনয় করেছেন। তার প্রথম মেইনস্ট্রিম মিডিয়াতে সম্প্রসারিত হয় 2005 সালে।সেখানে তিনি একজন রেড কার্পেট রিপোর্টার হিসেবে "এমটিভি ইন্ডিয়া" চ্যানেলে কাজ করেন 2011 সালে। তিনি ভারতীয় রিয়ালিটি টেলিভিশন সিরিজ বিগ বস 5 এ কাজ করেছেন। তিনি ভারতীয় রিয়ালিটি শো স্প্লিট ভিল্লা এর কাজ করেছেন।
2012 সালে তিনি পূজা ভাটের জিসম টু' সিনেমায় প্রথম 2012 সালে কাজ করেন এবং তারপর থেকে তিনি পর্ন ইন্ডাস্ট্রি থেকে সিনেমা জগতের দিকে গুরুত্ব বাড়িয়ে দেন।পরবর্তীতে তিনি 2013 সালে "জ্যাকপট" , 2014 সালে "রাগিনী এমএমএস 2" 2015 সালে "এক পেহেলি লীলা" ও 2017 সালে "তেরা ইন্তেজার" - এই  সিনেমাগুলিতে অভিনয় করেন।
অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি অ্যাঞ্জেলস হাফ ম্যারাথন এর ক্যাম্পেইন চালানো যাতে আমেরিকার ক্যান্সার সোসাইটির জন্য অর্থ সংগ্রহ করতে পারেন। তিনি কুকুরের চিকিৎসার জন্য অর্থ সংগ্রহের জন্য পেটা ক্যাম্পেইন চালানো।
2011 সালে তিনি সঙ্গীতজ্ঞ ড্যানিয়েল ওয়েবারের সাথে বিয়ে করেন এবং বর্তমানে মহারাষ্ট্রের মুম্বাই শহরে বসবাস করছেন।
সানিলিওনে মালায়ালাম সিনেমা মধুরা রাজা 2019 সালে অভিনয় করেন

সানি লিওনের শৈশবকাল

করণজিৎ কৌর ওরফে সানি লিওনি 1981 সালের 13 মে কানাডার অন্টারিও শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা-মা ছিল ভারতীয় শিখ পাঞ্জাবি।তার বাবা জন্মগ্রহণ করেন তিব্বতে এবং বড় হয়েছিল দিল্লিতে অন্যদিকে তার মা হিমাচল প্রদেশের মেয়ে ছিল। সানি লিওনের মা একজন হকি প্লেয়ার ছিল।
যদিও তার পরিবার শিখ ছিল কিন্তু তার বাবা-মা তাকে ক্যাথলিক স্কুলে ভর্তি করান কারণ তার বাবা-মা ভেবেছিলেন পাবলিক স্কুলে তার মেয়ে সুরক্ষিত নয়।
যখন সানি লিওনের বয়স 13 তখন সে তার পরিবারসহ  মিশিগান এ স্থানান্তরিত হন এবং পরবর্তীতে ক্যালিফোর্নিয়ার লেক ফরেস্টে একবছর পরে স্থানান্তরিত হন। তার ঠাকুরদার ইচ্ছা ছিল তারা পরিবারের সকলে মিলেমিশে থাকুক।তার ঠাকুরদার এই ইচ্ছা পূরণের পর 11 বছর বয়সে প্রথম চুম্বন এর স্বপ্ন পূরণ করেন এবং 16 বছর বয়সে একজন বাস্কেটবল প্লেয়ারের সাথে প্রথম যৌন সংসর্গ করেন তার সতীত্ব হারান ।

সানি লিওনের পর্নোগ্রাফি ক্যারিয়ার

সানি লিওনি পর্ন ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করার পূর্বে সে তিনি  একটি জার্মানির বেকারিতে কাজ করতেন তারপরে টেক্সটাইল এবং রিটায়ারমেন্ট ফার্মে কাজ করতেন। একই সাথে তিনি নার্স হওয়ার জন্য পড়াশোনাও চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

অ্যাডাল্ট পর্ণ ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করার জন্য যখন তিনি একটি নাম খুঁজছিলেন তখন তিনি সানি নামটি বেঁচে ছিলেন এবং লিওনি নামটি দিয়েছিলেন পেন্টহাউস ম্যাগাজিনের মালিক বব গুসিঅন।
তিনি পেন্টহাউস ম্যাগাজিনের জন্য অনেক চিত্র সুট করেন এবং 2001 সালে তাকে "পেন্টহাউস পেট" আখ্যা দেওয়া হয়।তিনি চেরি ও ম্যাচটি ম্যাগাজিন, হাই সোসাইটি সং, এবিএন অনলাইন, ওয়ার্ল্ড ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল এবং লও রাইডার প্রভৃতি ম্যাগাজিনেও কাজ করেন
অন্যদিকে অনলাইনে মোট এফএক্স মডেল ,সিজি ওকেন, মার্কাস প্রভৃতি পত্রিকায় তিনি প্রসিদ্ধি লাভ করেন।
2003 সালে তিনি পেন্টহাউস অফ দ্যা ইয়ার নামে ভূষিত হন এবং পরবর্তীতে ওয়েস্ট কোস্ট ইন্টারনেট সেল এর রিপ্রেজেন্টেটিভ হিসাবে কাজ পান।
ওই একই বছর সানি লিওনি "ভিভিড এন্টারটেইনমেন্ট" এর সাথে তিন বছরের একটি কন্ট্রাক্ট সাইন করেন যেটাতে তিনি পর্নোগ্রাফি এর সাথে সংযুক্ত হবেন।
তার প্রথম সিনেমা রিলিজ হয় 2005 সালে যার নাম রাখা হয় সানি এবং পরবর্তীতে "ভার্চুয়াল ভিভিড গার্ল সানি লিওনি " নামে আরেকটি ভিডিও রিলিজ হয়। মাত্র চারদিনে তিনি "এভিএন অ্যাওয়ার্ড" জিতে নেন।
সানি লিওনি শেষ দু বছরে  "সানি ইন ব্রাজিল" নামে একটি ভিডিও 2007 সালের ডিসেম্বর মাসে রিলিজ করে।
2007 সালের মে মাসে ভিভিডের সাথে আরও ছয় খানা ফিল্ম বানানোর তিনি কন্ট্রাক্ট সাইন করেন। সেখানে তিনি প্রথম কোন পুরুষ অভিনেতার সাথে অভিনয়ের জন্য তিনি রাজী হন। সেখানে তিনি তার ভাবি স্বামী মেট এরিকসনের সাথে প্রথম ভিডিও শুট করতে রাজি হন।
2008 সালের জানুয়ারি মাসে সানি লিওনি কিছু তথ্য ফাঁস করেন যেখানে তিনি বলেছিলেন যে তিনি আর এরিকসনের পছন্দ নন ।
2009 সালে ভিভিড সানি লিওনের প্রথম কোন পুরুষ অভিনেতার সাথে অভিনীত ভিডিও রিলিজ করেন যার নাম রাখেন "সানি বিজি অ্যাডভেঞ্চার"। তার শেষ রিলিজ হওয়া ছবির নাম ছিল "আনড্রেস মি"। সেখানে তিনি তার বর্তমান স্বামী ড্যানিয়েল ওয়েবারের সাথে অভিনয় করেন।
ভারতীয় সিনেমায় ক্যারিয়ার
2011 সালে সানি লিওনি বিগ বস 5 এ প্রবেশ করেন। একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে যে পরবর্তীতে তিনি 8000 নতুন টুইটার ফলোয়ার পান এবং গুগোল বলে যে গুগলের সানি লিওনের সার্চ একটি মাত্রা ছাড়িয়ে ছিল।
ইন্ডিয়ান টেলিভিশন চ্যানেল "কালারস" এর বিরুদ্ধে মিনিস্ট্রি অফ ইনফর্মেশন অন্ড ব্রডকাস্টিং এর কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয় যেখানে বলা হয় কালার্স চ্যানেল পর্নোগ্রাফিকে বাড়ানোর জন্য প্রমোট করছে।
সেই সময় মহেশ ভাট তাকে "জিসম-টু" সিনেমাতে অভিনয়ের সুযোগ দেন এবং তিনি সেটাতে সফল হন।
2014 সালে তার প্রথম রিলিজ হওয়া সিনেমা ছিল রাগিনি mms2 বক্সঅফিসে সুপারহিট হয়।
সানি লিওনের 2006 সালে আমেরিকার নাগরিকত্ব নেন কিন্তু তিনি দ্বৈত নাগরিকত্ব সহ কানাডায় বসবাস করতে থাকেন। 2012 সালের 14 এপ্রিল সানি লিওনি ভারতের নাগরিক হিসেবে নিজেকে প্রকাশ করেন।
একটি ইন্টারভিউ তিনি বলেন
It's a community-based religion. You walk into a temple and you're greeted with the utmost respect... But, just like any religion it doesn't want you to shoot adult material. I mean, I grew up going to temple every Sunday. When my parents found out they knew my personality which was very independent. Even if they tried to stop me or tried to steer me the right way they would have lost their daughter. I'm too headstrong. And it wasn't a plan. It just happened and my career and everything just kept getting bigger and bigger.
2017 সালের জুলাই মাসে তিনি এবং তার স্বামী ড্যানিয়েল ওয়েবার মহারাষ্ট্রের লাতুর থেকে একটি শিশুকে দত্তক নেন। সানি লিওনি তার নাম রাখেন "নিশাকর" তখন তার বয়স ছিল মাত্র 21 মাস।
2015 সালের মে মাসে সানি লিওনের ওয়েবসাইট সানি  লিওনি ডট কম এর উপরে একটি পুলিশ কমপ্লেন করা হয়। কমপ্লেন এর লেখা হয় যে এই ওয়েবসাইটটি মহিলাদের সংস্কৃতি নষ্ট করছে।পুলিশ সাইবার সেল এর বিরুদ্ধে 292, 294 ধারা আই.এফ.আই.আর হয় এবং সানি লিওনকে ক্ষতিপূরণ দিতে হয়।
সিনিয়র পুলিশ ইন্সপেক্টর যে কে শনস বলেন,
আমরা ওয়েবসাইটটি ব্লক করতে পারবোনা কিন্তু ওয়েবসাইটের মালিক কে বলে সেই সমস্ত জিনিস গুলো সরাতে বলব যেগুলো সমাজের ক্ষতি করছে।

ট্যাগ: পর্ন আর্টিস্ট সানি লিওনের জীবনী । সানি লিওনের জীবন কাহিনী | সানিলিওনের শৈশব জীবন;