করিমপুর বাজার চত্বরের চেহারা হঠাৎ বদলে গেল তৈরি হল নতুন বাস স্ট্যান্ড

করিমপুর বাজার চত্বরের চেহারা হঠাৎ বদলে গেল। 


প্রকৃতপক্ষে স্বাধীনতার পর থেকে করিমপুরে কোনও স্থায়ী বাসস্ট্যান্ড হয়নি।  মেইন রাস্তায় ধারে  বাস, অটো এবং টোটো গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকত দোকান গুলো ঘেঁষে ।  এইভাবে ই  ও বাস স্ট্যান্ড থেকে যাত্রীদের তুলে নিয়ে যাওয়া ও নামানো হবে ।  যানজট এর জন্য এলাকায় প্রতিনিয়ত মানুষ  হয়রানি হতে হচ্ছিল ।  এ জাতীয় সমস্যা বিবেচনা করে পরিবহন বিভাগ করিমপুরের প্রাক্তন বিধায়ক মহুয়া মৈত্রের নিয়ন্ত্রিত বাজার চত্বরে ১ কোটি এবং ৭৬ লাখ টাকা বরাদ্দ করেছে।  ২৮ অক্টোবর, পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী ব্যয় করে এই বাস স্ট্যান্ডের উদ্বোধন করেন।  নতুন বাসস্ট্যান্ডকে সুন্দর করার জন্য তিনি এক কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন।  এই ডিসেম্বর থেকে এই বাস স্ট্যান্ড থেকে করিমপুর থেকে কলকাতা নন স্টপ এসি ভলভো বাস চালু করা হবে। বাস স্ট্যান্ড এর উদ্বোধনের দিন উপস্থিত ছিলেন মহুয়া মৈত্র , নদীয়া জেলা শাসক , মিনিস্টার অফ পার্লামেন্ট আবু তাহের খান, করিম্পুর 1 নম্বর ব্লকের ভিডিও অনুপম চক্রবর্তী ও ও টেহট্ট মহকুমা শাসক আনিশ দাশগুপ্ত ।

Karimpur new bus stand

       বাসস্ট্যান্ডের সমস্যা দীর্ঘদিন ধরেই ছিল করিমপুর এর জন্য একটা ভয়াবহ অভিশাপ। একই জায়গায় বাস স্ট্যান্ড বাজার ও দোকানের আনাগোনা জায়গাটাকে করে তুলেছিল ঘিঞ্জি । তাই বাসগুলো সেখান থেকে বেরোতে ঢুকতে অনেকটাই সমস্যায় পড়ত। করিমপুরের  বিধায়ক মহুয়া মৈত্র হওয়ার পর করিমপুরের যে পরিবর্তন হয়েছে তা সত্যি মানুষের চোখে পড়ছে বলে জানিয়েছে সাধারন মানুষ।
Karimpur new bus stand

       নতুন বাসস্ট্যান্ডের কাছে রয়েছে সুপার মার্কেট। যদিও তা সম্পূর্ণরূপে এখনো নিজস্ব চিত্র আসতে পারেনি তবে ভবিষ্যতে করিমপুরের বৃহত্তম মার্কেট হবে এটি। বহরমপুরের নামকরা মার্কেট প্রাঙ্গণের অনুকরণ এটাকে বলা যেতে পারে। টাকি ছাদের তলায় অনেকগুলো দোকান এখানে মিলবে। বাসস্ট্যান্ডের কাছাকাছি হওয়ায় যাত্রীদের সমস্যা হবে না উপরন্তু তারা অল্প সময়ের মধ্যেই কেনাকাটা করে বাস ধরতে পারবে বলে জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।

 করিমপুর -১ এর বিডিও অনুপম চক্রবর্তী বলেছিলেন, 

 "আমরা ভেবেছিলাম মন্ত্রীর অনুষ্ঠানের পর বাস মালিক, পরিবহন বিভাগ, মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতি, পুলিশ ও প্রশাসনের অন্যান্য আধিকারিকরা করিমপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে নিরাপদে মানুষ যাতায়াতের ব্যবস্থা করবেন।  সকল পক্ষের মতামত একত্রিত করার জন্য এ নিয়ে কিছুটা আলোচনার দরকার ছিল।তবে বুধবার নতুন বাসস্ট্যান্ড থেকে বাস চলাচল শুরু হওয়ার সাথে সাথে করিমপুর বাজার চত্বর পুরোপুরি যান চলাচল মুক্ত হয়ে গেছে। মানুষ এখন পারবেন  অনেক বেশি নিরাপদ ভ্রমণ।
Karimpur new bus stand

 প্রশাসন সূত্র জানায়, মঙ্গলবার করিমপুর -৩ গ্রাম পঞ্চায়েতের টেহট্ট বিভাগের মহকুমা শাসক আনিশ দাশগুপ্ত, করিমপুর ১-এর বিডিও, জেলা পরিবহন অফিসের কর্মকর্তা, পুলিশ ও বাস মালিক ও বাজার ব্যবসায়ীদের সদস্যরা বৈঠক করেছেন।  সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে যাত্রীবাহী বাস অবশ্যই নতুন বাস স্ট্যান্ডে যেতে হবে।  বাজার চত্বরে পাকা রাস্তার পাশে, যাত্রীদের নামানো বা নামানো যায় না।  এমনকি যাত্রী পরিবহনের জন্য পুরানো বাসস্ট্যান্ডে অটো বা যে কোনও ধরণের চার চাকার গাড়ি পার্ক করা যায় না।  প্রত্যেককে নতুন বাস স্ট্যান্ড থেকে যাত্রী বাছাই করতে হবে বা নামাতে হবে।  বুধবার করিমপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে সাধারণ মানুষকে এ জাতীয় সেবা প্রদানের বিষয়ে পক্ষের একমত হওয়ার পরে বাস পরিষেবা শুরু হয়েছিল।

 সন্তু স্বর্ণাকর নামে একজন পরিবহন কর্মী বলেছিলেন, “সরকারি-বেসরকারী থেকে প্রায় ৫ টি বাস করিমপুর থেকে চলাচল করছে। জেলার অন্য কোথাও রেলপথ রয়েছে, বাসটি করিমপুরের একমাত্র ভরসা, তাই আমরা বাছাই বা সরিয়ে শুরু করেছি।  নতুন বাসস্ট্যান্ড থেকে যাত্রীরা সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে বিবেচনা করছেন।  মার্কেট স্কয়ার দেখেছি।  এ জাতীয় পরিস্থিতি যদি সর্বদা বজায় রাখা যায় তবে সাধারণ মানুষ নিরাপদে সরে যেতে পারবে।

আরো পড়ুন: অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের সতর্কতা! এই অ্যাপ্লিকেশনটি আপনার সমস্ত অর্থ চুরি করতে পারে - আপনার কাছে থাকলে এখনই আনইনস্টল করুন